কালী মন্দিরে আগুন ও প্রতীমা ভাংচুর: ২ শিবির কর্মী পুলিশের রিমান্ডে

সামসুল হুদা হিটু: মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মনিপাড়া সার্বজনীন কালী মন্দিরে আগুন ও প্রতীমা ভাংচুরের ঘটনায় ছাত্র শিবিরের ২ কর্মীকে বুধবার বিকেলে পুলিশি রিমান্ডে আনা হয়েছে। আগের দিন মঙ্গলবার পুলিশের ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত ২ শিবির কর্মীর ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

মন্দিরে হামলা চালিয়ে আগুন দেওয়া ও বেশ কয়েকটি প্রতীমা ভাংচুরের ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে সোমবার দিবাগত রাতে লৌহজং উপজেলার ঘোড়দৌড় গ্রাম থেকে শিবির কর্মী শাহ আলমকে (৩৬) ও একই রাতে হলদিয়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে অপর শিবির কর্মী মামুনকে (৩২) গ্রেফতার করে থানা পুলিশ।


লৌহজং থানার অফিসার্স ইনচার্জ জাকিউর রহমান জানান, থানা হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে মঙ্গলবার বিকেলে গ্রেফতারকৃত শিবির কর্মীদের জেল হাজতে পাঠায়। বুধবার বিকেলে জেল হাজত থেকে ২ শিবির কর্মীকে লৌহজং থানা হেফাজতে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে মন্দিরে আগুন-ভাংচুর করার ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে মনে করছে পুলিশ।

উল্লেখ্য রোববার দিবাগত রাত ১০ টার দিকে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার গোয়ালীমান্দ্রা গ্রামে মনিপাড়া সার্বজনীন কালী মন্দিরে জামায়াত-শিবির আগুন লাগিয়ে দেয় ও বেশ কয়েকটি প্রতীমা ভাংচুর করে।

এ ঘটনায় লৌহজং থানায় ওই মন্দিরের পরিচালনা কমিটির সভাপতি অনীল চন্দ্র দাস বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

ওয়ান নিউজ