বিডিআর বিদ্রোহ: মেজর মাহমুদুলের কবর জিয়ারত

Mahmudul_hasan_Swapan_Majorপিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহে নিহত সেনা কর্মকর্তা মেজর মাহমুদুল হাসানের কবর জিয়ারত করেছেন তার মা আলহাজ মমতাজ বেগম এমপিসহ স্বজনরা। সোমবার সকাল ৭টার দিকে ৪র্থ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে কবর জিয়ারত করার সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। এসময় বনানী সামরিক কবরস্থানে এক হূদয় বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

বিডিআর বিদ্রোহে নিহত ৫৮ জন শহীদ সেনা কর্মকর্তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এ ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনায় ৫৮ জন সহকর্মীর সঙ্গে শহীদ হওয়া মেজর মাহমুদুল হাসান স্বপন, মেজর মোশারফ হোসেন ও মেজর হুমায়ুন কবিরের পৈত্রিক বাড়ি মুন্সীগঞ্জে।

মেজর মাহমুদুল হাসান স্বপনের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ শহরের মধ্য কোটগাও এলাকায় ও মেজর মোশারফ হোসেনের বাড়ি গজারিয়া উপজেলার টেঙ্গারচর গ্রামের মীরেরগাও ও মেজর হুমায়ুন কবিরের বাড়ি একই ইউনিয়নের বৈদ্যেরগাও গ্রামে।

এদিকে ৪র্থ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে মেজর মাহামুদুল হাসান স্বপনের ঢাকার রামপুরা বাসায় এবং অপর ২ সেনা কর্মকর্তা মেজর মোশারফ হোসেন ও মেজর হুমায়ুন কবিরের ঢাকার বাসায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া তাদের পৈত্রিক বাড়ি মুন্সীগঞ্জে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল হয়েছে।

মেজর মাহমুদুল হাসান স্বপনের ভাই মইনুল হাসান তপন বাংলানিউজকে জানান, সোমবার সকাল ৭টার দিকে পরিবারের সবাই বনানী কবরস্থানে গিয়ে সেনা কর্মকর্তাদের কবর জিয়ারত করা হয়েছে। এ সময় তার মা কান্নায় ভেঙে পড়েন।

গজারিয়া থেকে আমিরুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, ৪র্থ শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার উপজেলার টেঙ্গারচর ইউনিয়নরে মীরেরগাও গ্রামে মেজর মোশারফ হোসেনের ও একই ইউনিয়নের বৈদ্যেরগাও গ্রামে মেজর হুমায়ুন কবিরের পৈত্রিক বাড়িতে ও ঢাকার বাসায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম