চোর সন্দেহে আটক ডিপিসির ৫ কর্মচারী মুক্ত

ট্রান্সফরমার চোর সিন্ডিকেটের সদস্য সন্দেহে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিসি) ৫ কর্মচারী মুন্সীগঞ্জে আটক থাকার ৮ ঘণ্টা পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সোমবার দুপুর ২টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা হেফাজত থেকে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এর আগে মুন্সীগঞ্জ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে ডিপিসির উর্ধ্বতন কর্মকতারা। এ সময় তারা দাবি করেন আটকরা ট্রান্সফরমার চুরি ঠেকাতে টহল দিচ্ছিল।

এতে প্রাথমিকভাবে আটকরা নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় সদর থানায় জিডি রুজু করে ও মুচলেকা রেখে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয় বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

মুক্তারপুর নৌ-ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মোশারফ হোসেন বাংলানিউজকে জানান, সোমবার ভোরে ৫ ব্যক্তি মুক্তারপুর এলাকায় একটি পিকআপ ভ্যান নিয়ে ঘোরাফেরা করছিল। তখন ট্রান্সফরমার চোর সন্দেহে তাদের আটক করা হয়।

পরে এ ঘটনায় সদর থানায় জিডি রুজু করা হয়।

আটকরা হলেন, ডিপিসির লাইনম্যান মো. রাজিউদ্দিন (৪৫), আব্দুল বারেক (৪৬), কাজল মিয়া (৪০), ইলেক্ট্রিশিয়ান বাচ্চু মিয়া (৪২) ও পিকআপ চালক জালাল মোস্তাফাকে (৪৪)।

পুলিশের অপর একটি সূত্র জানায়, তাদের আটক করার খবর পেয়ে ডিপিসির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সোমবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে তারা চুরি ঠেকাতে টহল দিচ্ছিল জানানোর পর আটকদের ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ম্যানেজার আবুল বাসার বাংলানিউজকে জানান, তারা চুরি ঠেকাতে টহল দিতে এসেছিল। ভুলক্রমে পুলিশ তাদের আটক করেছিল।

এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বাসার জানান, তদন্ত শেষে আটক ৫ কর্মচারীকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম