মেঘনা নদীতে মরে ভেসে উঠছে মাছ!

বিষাক্ত বর্জ্যে পানি দূষণ হয়ে ভেসে উঠছে মেঘনার মাছ। শহরের হাটলক্ষীগঞ্জ এলাকা থেকে গজারিয়া-ষাটনল এলাকার অন্তত ৬ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে মেঘনা নদীর ছোট ছোট মাছ মরে ভেসে উঠছে। গত ২দিন ধরে মেঘনা নদীতে এ ঘটনা ঘটছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এ খবর পেয়ে গতকাল বুধবার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবদুল কাইয়ুম মেঘনা নদী চষে বেড়িয়েছেন। তবে, তিনি দাবি করে বলেছেন, এটা বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির দূষিত বর্জ্যে থেকে এ রকম ঘটনা ঘটেনি। তার দাবি, মেঘনায় চিংড়ি, বাইল্ল্যা, চেউয়া, চাপিলাসহ ছোট ছোট মাছগুলো মরে ভেসে উঠছে না। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, প্রতি বছর পূর্ণিমা বা জোঁ এলে নদীর ছোট ছোট মাছগুলো নদী পাড়ে লাফাতে লাফাতে চলে আসে। এটি সিজন ওয়ারিই প্রতি বছর হয়ে থাকে। এতে অন্য কোন কারণ নেই। ভয় পাবারও কারণ নেই।


পাগলা কোস্টগার্ডের স্টেশন কমা-ার লে. ফেরদৌস আহমেদ ঘটনার সত্যতা স্কীকার করে বলেন, নদীর পানি দূষণের কারণেই এ রকম ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে গজারিয়া উপজেলা ইউএনও মোসাম্মদ কামরুন্নাহার বলেন, মেঘনা নদীতে মাছ মরে ভেসে উঠার খবর পেয়েছি। কি কারণে মাছ মরছে বা ভেসে উঠছে-তা অনুসন্ধানের জন্য প্রাণি সম্পদ বিভাগ ও জেলা মৎস্য কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, শহরের হাটলক্ষীগঞ্জ থেকে শুরু করে সোনারগাঁয়ের চরকিশোরগঞ্জ, গজারিয়ার নয়ানগর, বালুরচর, গজারিয়া ও চাঁদপুরের মতলবের ষাটনল পর্যন্ত এলাকা জুড়ে মেঘনা নদীর ছোট ছোট মাছগুলো মরে ভেসে উঠছে। আর এ মাছ নদী পাড়ের লোকজন নিয়ে যাচ্ছে। এ মাছ খেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়ারও আশঙ্কা করছেন তারা। তাদের দাবি, গজারিয়া, মুন্সীগঞ্জ এলাকার বিভিন্ন সিমেন্ট, পেপার মিল, কনকর্ড, টেক্সটাইল, পারটেক্স ও কেমিক্যাল ফ্যাক্টরীর দূষিত বর্জ্যে নদীর পানিতে এসে পানি দূষিত হয়ে পড়ছে।

জাস্ট নিউজ