৮ বছর পর লৌহজং আওয়ামী লীগের কাউন্সিল আজ

কাউন্সিলকে ঘিরে ২ ধারায় বিভক্ত আওয়ামী লীগ, নির্বাচনের দিকে টার্নিং নিচ্ছে সম্মেলন
মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় ৮ বছর পর আগামী কাল শনিবার আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে এখানে এখন এক দিকে যেমন উৎসব আমেজ বিরাজ করছে, তেমনি কাউন্সিলকে ঘিয়ে গোটা উপজেলা আওয়ামী লীগ দুই ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে। কমিটিতে নিজের পদবীসহ নাম রাখার জন্য কর্মীরা উপজেলার নেতাদের বাড়িতে তদবিরে নেমে পড়েছেন। উপজেলা কমিটিতে সবচেয়ে বড় পদ হচ্ছে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ। আর এই পদে একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যচ্ছে। তবে এই দুটি পদের প্রার্থীদের মধ্যে গ্রুপিং ও লবিং চলছে বেশ জোড়েশোড়ে।

মুন্সীগঞ্জ-২ (টঙ্গীবাড়ী-লৌহজং) আসনের এমপি হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি চাচ্ছেন বর্তমান কমিটিকে পূর্ণবহালের জন্য। তার সমর্থন আদায়ে একটি গ্রুপ সক্ষম হলেও অপর গ্রুপটি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল আলম লেনিনের সমর্থন নিয়ে সভাপতি পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ মোড়ল ও যুগ্ম সম্পাদক জাকির বেপারী সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার প্রস্তুতি নিয়েছেন। এ নিয়ে বুধবার উপজেলা আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির সভায় সমঝোতার ভিত্তিতে কাউন্সিল সম্পন্ন করতে চাইলেও নেতৃবৃন্দ এক মত হতে পারেনি। ফলে নির্বাচনের দিকেই মোড় নিচ্ছে লৌহজং আওয়ামী লীগের কাউন্সিল। এক্ষেত্রে কয়েকটি ইউনিয়নকে বাদ রেখেই কাউন্সিল সম্পন্ন করতে হতে পারে। তবে অসম্পন্ন কমিটির ওই ইউনিয়নগুলি বাদ রেখে কাউন্সিল কতটা যুক্তিযুক্ত তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিযেছে নেতা কর্মীদের মাঝে। আবার ব্যাপক হট্রগোগোল ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে সম্মেলন বানচালও হতে পারে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লৌহজং উপজেলার আওয়ামী লীগের বর্তমান সভাপতি হচ্ছেন আলহাজ্ব ফকির মোঃ আব্দুল হামিদ আর সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন সেলিম আহমেদ মোড়ল। এবারের কাউন্সিলকে ঘিরে এরা দুজনেই এখন সভাপতি প্রার্থী। অপর দিকে সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি নিয়েছেন বর্তমান দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এরা হচ্ছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও ১নং যুগ্ম সম্পাদক জাকির হোসেন বেপারী ও যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল রশিদ সিকাদর। বর্তমান সভাপতি আব্দুল হামিদ ফকির ও যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল রশিদ সিকদার হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিনের আশির্বাদ নিয়ে মাঠে নেমেছেন। অপর দিকে সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ মোড়ল ও যুগ্মা সম্পাদক জাকির বেপারী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ উল আলম লেনিনের আশির্বাদ নিয়ে মাঠে নেমেছেন। তবে সম্পাদক পদে জাকির হোসেন বেপারী নূহ উল আলম লেনিনের পক্ষে ও রশিদ সিকদার সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলির পক্ষে প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্ধন্দ্বিতা করবে বলে ব্যাপক গুঞ্জন রয়েছে। তবে হুইপ এমিলি চেয়েছিলেন বর্তমান সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে পূনরায় এ পদে রেখে নতুন কমিটি গঠন করতে। কিন্তু একটি মহলের চাপে তা সম্ভব হচ্ছে না বলে সুত্র জানিয়েছে।

এদিকে বুধবারের উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির শেষ সভাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা সভা পরিষদকে উপেক্ষা করে সভাপতি ফকির আব্দুল হামিদ নিয়ম ভঙ্গ করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ মোড়ল। তিনি বলেন, পূর্বের সভার সিদ্ধান্ত ও হলদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত থাকলেও সভাপতি অবৈধ রোলিং দিয়ে তা অনুমোদন না করে সভা সমাপ্ত না করে চলে যায়। এসময় ব্যাপক হট্রগোল ও বিশৃঙ্খরার জন্য সভাপতি দায়ী বলে তিনি অভিযোগ করেন।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে ফকির আব্দুল হামিদ বলেন, আমি স্বেচ্ছাচারিতা করিনি, বরং সাধারণ সম্পাদকের স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদ করায় ইর্ষা পরায়ন হয়ে আমাকে স্বেচ্ছাচারি বলা হচ্ছে। আহবায়ক কমিটির কোন কাগজ-পত্র ও নাম ঠিকানা না দেখিয়ে তারা আমাকে দিয়ে অনুমোদন করাতে চাওয়ায় আমি এর প্রতিবাদ করেছি। আর হট্রগোল ও বিশৃঙ্খলার কারণে সভাপতি হিসেবে রোলিং দেওয়ার অধিকার আমার রয়েছে।

অপর দিকে স্থানীয় সাংসদ ও জাতীয় সংসদের হুইপ অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলিকে সন্মেলনে তৃতীয় সারির অতিথি করার জন্য প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ আলম লেলিন হস্তক্ষেপ করেছে বলে সাধারণ নেতা কর্মীদের নিকট থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে নেতা কর্মীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তাকে যথাযথ মর্যাদায় দেখতে চায় তৃনমূলের নেতা কর্মীরা। তাছাড়া সম্মেলনে একটি সাজানো কমিটিকে অনুমোদন করার জন্য নুহ আলম লেনিন এতে হস্তক্ষেপ করেছেন বলে তৃনমূলের নেতা-কর্মীদের নিকট থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তবে এ ব্যাপরে নূহ উল আলম লেনিনের মোবাইলে যোগাযোগ করলেও অপর প্রান্ত থেকে ফোন ধরেননি তিনি।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ