জেলাখানায় শীর্ষ সন্ত্রাসী খসরুর কাছ থেকে গাজা উদ্ধার

অপহরনের চেষ্টা, গ্রেফতার ২
মুন্সীগঞ্জ জজকোর্টের বারান্দা থেকে সদর উপজেলার দক্ষিণ দেওসার গ্রামের মাদক সন্ত্রাস নিমূর্ল কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালামকে বুধবার দুপুরে অপহরনের চেষ্টা চেলায় সন্ত্রাসীরা। এই ঘটনায় পুলিশ আদালত প্রাঙ্গণ থেকে শীর্ষ সন্ত্রাসী খসরুর সহযোগী মুজাহিদ (২৮) ও শিবলুকে (২৪) হাতেনাতে গ্রেফতার করেছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার ভোরে জেলখানার ভেতরে শীর্ষ সন্ত্রাসী খসরুর কাছ থেকে দুই পুড়িয়া গাজা ও ঘুমের ১০টি ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে। এতে জেলকোড অনুযায়ী ব্যবস্থা হচ্ছে।


সদর থানার ওসি আবুল বাসার জানান, বিচার কাজের জন্য জেল হাজতে থাকা শীর্ষ সন্ত্রাসী খসরুকে আদালাতে হাজিরা শেষে দুপুরে গারদখানায় নেয়ার পথে তার সহযোগীরা আব্দুস সালামকে অপহরনের চেষ্টা চালায়। এই ঘটনায় আব্দুস সালাম বাদী হয়ে সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তবে এই ঘটনায় খসরুর ইন্দন থাকলেও জেল হাজতে থাকায় তার বিরুদ্ধে মামলা নেয়া যায়নি।

বাদী আব্দুস সালাম জানান, আদালতে মামলা বিষয়ে আইনজীবীর সাথে দেখা করতে যাওয়ার সময় খসরুর নির্দেশে আমাকে আদালত থেকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে এবং মারধর করে। প্রথম থেকেই খসরুর সন্ত্রাসী কার্যক্রমের বিরোধিকার কারণে এমনটি করেছে বলে তার ধারণা।

সম্প্রতি পুলিশের সাথে বন্দুক যুদ্ধে খশরুর ডান পা গুলি বিদ্ধ হলে পা কেটে ফেলা হয়। তার বিরুদ্ধে ডজনখানেক মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

এদিকে মুন্সীগঞ্জের জেলার মো. আমজাদ হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার ভোরে জেলখানার তালা মুক্ত সময়ে জেলারের কেস টেবিলে খসরুর জ্যাকেট তল্লাসি করে গাজা ও ঘুমের ওষুদ পাওয়া যায়। এব্যাপারে জেল কোড মোতাবেক তার শাস্তি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। পরে দুপুরের দিকে খসরুর একদল সহযোগী জেল খানার গেটে জেলার ও এক কারারক্ষীকে উদ্দেশ্য করে হুমকি প্রদর্শন করে পালিয়ে যায়।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ