ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মেঘনা ও মেঘনা-গোমতী সেতুর মেরামত কাজ শুরু

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মেঘনা ও মেঘনা-গোমতীর সেতুর ওপর দিয়ে সকল যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। গতকাল সকাল থেকে সেতু দু’টির মেরামত কাজ শুরু হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দু’টির মেরামত কাজের জন্য প্রথম পর্বে ৪ দিন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সংস্কার কাজের জন্য আগামী মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত মেঘনা ও মেঘনা-গোমতী সেতু বন্ধ করে দেয়ার পর বিকল্প সড়ক হিসেবে নরসিংদী-ভৈরব ও আশুগঞ্জ হয়ে কুমিল্লা-ময়নামতি-ব্রাহ্মণবাড়িয়া দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে বলা হয়েছে। গত ২৩শে ডিসেম্বর যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এমপি মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা সেতুর ক্ষতিগ্রস্ত পিলারে সেন্ড ব্যাগ ও জিও ব্যাগ ফেলে সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন। সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের একটি টিম দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছেন।


মেঘনা সেতুর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলী মো. মামুন জানান, সংস্কার কাজের উদ্বোধনের পর থেকে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের একটি টিম নদীর তলদেশের মাটি সরে গিয়ে মেঘনা সেতুর ক্ষতিগ্রস্ত ৭, ৮ ও ৯নং পিলারের কাছে ৬৪ লাখ সেন্ড ব্যাগ ও ২৪ লাখ জিও ব্যাগসহ মোট ৯০ লাখ ব্যাগ ফেলে সংস্কার কাজ অব্যাহত রেখেছেন।
এ কাজের পাশাপাশি আগামী ৮ই জানুয়ারি ভোর পর্যন্ত মেঘনা সেতুর উপরের অংশে সংস্কার কাজ করবেন। তাই কাজ চলাকালে সেতুর ওপর দিয়ে সকল যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তিনি আরও জানান, প্রথম পর্বের কাজ শেষে পরে আরও দুই পর্বে মেঘনা সেতুর সংস্কার কাজ করা হবে। সে সময়েও দু’দফা সেতুর ওপর দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। এ সময়ে নরসিংদী-ভৈরব ও আশুগঞ্জ হয়ে কুমিল্লা-ময়নামতি-ব্রাহ্মণবাড়িয়া দিয়ে বিকল্প সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে বলা হয়েছে। জানা গেছে, ৪৩৬ কোটি টাকা ব্যয়ে মেঘনা সেতুর ঝুঁকিপূর্ণ পিলার সংস্কার কাজ শুরু করা হয় গত ২৩শে ডিসেম্বর। ৩ পর্বে ২১ দিনের মধ্যে এ সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হবে। এ কাজ শেষ হলে আগামী ১০ বছরে মেঘনা সেতুর সংস্কার কাজ করতে হবে না।

মানবজমিন