মুন্সীগঞ্জ হাসপাতালে এক ঘণ্টায় ৪ জনের মৃত্যু

child munshigonjমামুনুর রশীদ খোকা: ঠাণ্ডাজনিত কারণে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে মাত্র এক ঘণ্টার ব্যবধানে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আরও দু’জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তীব্র শীতে মঙ্গলবার রাতে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডা. রহমত উল্লাহ। রাত ৯টা ১২ মিনিট থেকে শুরু করে রাত ১০টা ২০ মিনিট পর্যন্ত এ ৪ জন মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

এদিকে ঠাণ্ডাজনিত কারণে মুন্সীগঞ্জ সদরে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। অ্যাজমা, হাঁপানি, নিউমোনিয়া ও কাশিসহ জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে লোকজন। তা ছাড়া ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ২৩ শিশুরোগীকে ভর্তি করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে গতকাল বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ওই ২৩ শিশুকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ছাড়া গত এক সপ্তাহে ৩ শতাধিক রোগীকে ঠাণ্ডাজনিত কারণে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে এ হাসপাতালে। হাসপাতালে আসা শিশুদের বেশির ভাগকে নেবুলাইজার দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু নেবুলাইজার যন্ত্র ও পথ্যের অভাব থাকায় হাসপাতাল কর্তৃর্পক্ষকে হিমশিম খেতে হচ্ছে।


হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাত ৯টা ১২ মিনিটে ঠাণ্ডাজনিত কারণে শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসেন শহরের উপকণ্ঠ পঞ্চসার ইউনিয়নের কালীপুর গ্রামের আবদুর রহমান সিকদার। চিকিৎসারত অবস্থায় তিনি সেখানে মারা যান। তিনি মৃত নিয়ামত আলীর ছেলে। এরপর ৯টা ৪০ মিনিটে ইসমাইল মাল শরীরে রক্তজমাট বেঁধে মারা যান হাসপাতালে। তিনি জেলা সদরের মীরকাদিমের মৃত বাদশা মালের ছেলে।
child munshigonj
এ ছাড়া ৯টা ৪৫ মিনিটে মারা যান জেলার লৌহজং উপজেলার কলমা গ্রামের মৃত রুস্তম খানের ছেলে মো. আলিম খান। সবশেষে ১০টা ২০ মিনিটে সাফিয়া বেগম নামে এক রোগী মারা যান হাসপাতালে।

তিনি জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার ছোট কেওয়ার গ্রামের বাসিন্দা। এ ছাড়া একই রাতে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত দু’জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন জেনারেল হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তার। তারা হচ্ছেন সদর উপজেলার চরকিশোরগঞ্জ এলাকার মনোয়ারা ও মহাকালী ইউনিয়নের কেওয়ার গ্রামের রমিজ উদ্দিন মোল্লা।
এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিভাগের কনসালট্যান্ট ডা. মো. আশরাফুল ইসলাম শিশু ও বৃদ্ধদের প্রতি বেশি করে খেয়াল রাখার নির্দেশ দিযেছেন।

সমকাল