পদ্মা সেতু: ১২০ কোটি ডলারের ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর কাল

পদ্মা সেতু নির্মাণে বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে আগামীকাল বৃহস্পতিবার ১২০ কোটি ডলারের রেয়াতি ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হবে। পদ্মা সেতুস্থল মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া এলাকার কাছে পদ্মা নদীর মাঝে বিআইডব্লিউটিএ’র রো রো ফেরি ভাষা শহীদ বরকত-এ বসে এই ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে।

বাংলাদেশ সরকারের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিস নগোজি ওকানোজো-আইওয়েলা এই অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া পরিকল্পনা মন্ত্রী এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) এ কে খন্দকার, যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর অর্থ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, নৌ পরিবহন মন্ত্রী মো. শাহজাহান খান, জাতীয় সংসদের হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলিসহ সরকারের নেতৃবৃন্দ ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

এদিকে, এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে মাওয়া এলাকায় আজ বুধবার দিনভর সেতু কর্তৃপক্ষ, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যস্ত সময় কাটাতে দেখা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভাষা শহীদ বরকত নামের রো রো ফেরিতে বিশ্বব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে বেলা ১২টায় ১২০ কোটি ডলারের রেয়াতি ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হবে। এরপর দুপুর ১টায় যৌথ সংবাদ সম্মেলন করা হবে। এর আগে মাওয়া পদ্মা রিসোর্ট হাউজে পদ্মা বহুমুখী সেতু সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরবেন প্রকল্প পরিচালক। পরে লৌহজংয়ের কুমারভোগে পদ্মা সেতু পুনর্বাসন পল্লী-৩ ও সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করবেন অতিথিবৃন্দ।

সূত্র আরো জানায়, বিশ্বব্যাংকের চুক্তি স্বাক্ষরের পর পর্যায়ক্রমে জাইকাসহ অন্যান্য দাতা সংস্থাগুলোর সঙ্গেও এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। এরপরই পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হবে। এছাড়া সেতু নির্মাণ কাজ নির্বিঘ্নে সম্পন্ন ও নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে সেতু এলাকাকে কেপিআই বা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ঘোষণা করে সেখানে সেনাবাহিনীর একটি টিম মোতায়েন করা হবে।

[ad#bottom]