বন্ধুত্বের বন্ধনঃ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি কানের কৃতজ্ঞতা

রাহমান মনি
জাপানের বিপর্যয়ে এগিয়ে আসায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান। এক বিবৃতিতে কান বলেন, “পূর্ব জাপানে ভয়াবহ ভূমিকম্পে প্রাণ হারিয়েছেন ১৩ হাজার লোকেরও বেশি, এখন পর্যন্ত নিখোঁজ রয়েছেন ১৪ হাজারের বেশি লোক, দেড় লক্ষ লোক আশ্রয় কেন্দ্রে দিন কাটাচ্ছেন, আমি জাপানি-বিদেশি সকলের প্রতি এবং তাদের পরিবারের প্রতি জানাই আমার আন্তরিক সমবেদনা।”

কান বলেন, আমরা ফুকুশিমা দাইইচি বিদ্যুত কেন্দ্রকে দ্রুত স্থিতিশীল অবস্থায় ফিরিয়ে আনার জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, একমাস হলো এই ভয়ঙ্কর ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে, জাপান এখন দুঃসময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছে কিন্তু জাপান আবারও তার বন্ধুদেরকে উপলব্ধি করতে পারছে এবং আন্তরিক চিত্তে বিশ্ববাসীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছে।

“১৩০টি দেশ, ৪০টি আন্তর্জাতিক সংস্থা, অসংখ্য বেসরকারি সংস্থা এবং বিদেশি ব্যক্তিবর্গ তাদের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন আমাদের প্রতি। শুধু তাই নয়, তারা তাদের সমর্থন এবং অর্থ ও বিভিন্ন ভাবে সমবেদনা জ্ঞাপান করেছেন। অনেক দেশ দ্রুত উদ্ধারকর্মী পাঠিয়েছেন, কোন কোন দেশ খাদ্য, ঔষধপত্র ও সরঞ্জাম এবং কম্বল পাঠিয়েছে, বিতরণ করেছেন। তাদের এই সাহায্য ক্ষতিগ্রস্থ লোকজনদের মনে সাহস আর উৎসাহ যুগিয়েছে। বিদেশি শিশুদের তৈরি অজস্র অরিগামি বা কাগজের সারস আমরা পেয়েছি, সে সব শিশুরা দুর্গত এলাকা দ্রুত পুনর্গঠনের আশাবাদ ব্যক্ত করেছে।” -কান বলেন।

তিনি বলেন “জাপানের জনগনের পক্ষ থেকে আমি বিশ্ববাসীকে আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।”

তিনি আরো বলেন, কোন সন্দেহ নেই জাপান আবার উঠে দাঁড়াবে, আগের চাইতে আরো সুন্দর দেশ হিসেবে গড়ে উঠবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে। জাপান তার সাধ্যমত চেষ্টা করবে এই সমবেদনার প্রতিদান দিতে।

“জাপান নিশ্চিত ভাবে এই উপকারের প্রতিদান দিতে বদ্ধপরিকর, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নিকট আমরা যে সহযোগিতা পেয়েছি আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সহযোগিতার মাধ্যমে তা পরিশোধ করবো।

সব শেষে আমি বলতে চাই আমি জাপানকে পুনর্গঠন করতে আমার সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাব।” কান বলেন।৷

[ad#bottom]