বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া শুরু

হুমায়ুন কবির খোকন: ১০ জানুয়ারি থেকে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদিখান ও লৌহজং উপজেলার আড়িয়ালবিলস্থ ১০ হাজার ৬০০ একর জমি এবং গত ১৮ জানুয়ারি ঢাকা জেলা বরাদ্দ কমিটির সভায় সিদ্ধান্তের পর দোহার ও নবাবগঞ্জ উপজেলার আড়িয়াল বিলস্থ ১২ হাজার ৯০০ একর জমি অধিগ্রহণে ৩ ধারা নোটিশ জারি শুরু করেছে। এছাড়া ঢাকা জেলা প্রশাসন অধিগ্রহণের জায়গার ভিডিও ধারণও সম্পন্ন করেছে।

সূত্র জানায়, পিপিপি বিশেষজ্ঞ ও সরকার নিয়ন্ত্রিত সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ফ্যাসিলেটেশন সেন্টার (আইআইএফসি) নতুন বিমানবন্দরের জন্য বিশেষজ্ঞ ও বিনিয়োগকারী নিয়োগে পরামর্শক হিসেবে সহযোগিতা করতে বিমান মন্ত্রণালয়কে প্রস্তাব দিয়েছে। আইএফআইসি হাইটেক পার্ক প্রকল্প, নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনাল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পে পরামর্শক হিসেবে কাজ করছে। এ প্রকল্পের ডিপিপিতে পরামর্শকের জন্য ৩৫০ কোটি টাকা ধরা হলেও আইআইএফসি এ কাজের জন্য ৮০ কোটি টাকা প্রস্তাব করেছে।

বিমান ও পর্যটন সচিব শফিক আলম মেহেদী জানান, ২৩ হাজার ৫০০ একর জায়গায় কোনো স্থাপনা নেই। বসতি না থাকায় উচ্ছেদেরও কোনো প্রয়োজন নেই। সেখানে অনেক খাস জমিও রয়েছে। এছাড়া এ জমি একফসলী জমি। অপপ্রচার হচ্ছে তিন ফসলী।

ক্ষতিপুরণ দেয়া প্রসঙ্গে তিনি জানান, যথোপযুক্ত ক্ষতিপুরণ প্রদানে প্রশাসনিক কার্যক্রম নেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে হয়রানির শিকার না হন সেই বিষয়েও পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তদের নানাভাবে সহায়তা করা হবে। চাকরি, দোকান বরাদ্দ দেয়া হবে। এছাড়া সেখানে আধুনিক নগরী করা হলে বিপুল কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে।

আমাদের সময়
———————————————–

বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু

মুন্সীগঞ্জে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জমি অধিগ্রহণ ও ক্ষতিপূরণ দিতে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিবের (সিভিল অ্যাভিয়েশন) নেতৃত্বে গঠিত ১০ সদস্যের টাস্কফোর্সে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, ভূমি, যোগাযোগ ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়, ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন এবং সিভিল অ্যাভিয়েশনের প্রতিনিধি রয়েছেন। প্রস্তাবিত বিমানবন্দরের সিংহভাগ জায়গা হচ্ছে মুন্সীগঞ্জ জেলায়। টাস্কফোর্স গত সপ্তাহ থেকে কার্যক্রম শুরু করেছে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর, ঢাকার দোহার ও নবাবগঞ্জের বিশাল এলাকাজুড়ে অবস্থিত আড়িয়ল বিলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণে সম্প্রতি সরকারের উচ্চপর্যায়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। এ বিষয়ে বিমানবন্দর নির্মাণসংক্রান্ত সেলের প্রধান ও যুগ্ম সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদার জানান, জনগণের কোনো ক্ষতি হয় এমন কিছু সরকার করবে না। সার্বিক পরিস্থিতি পর্যালোচনার ভিত্তিতেই আড়িয়ল বিলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের জমি অধিগ্রহণ-প্রক্রিয়ার প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরাই ক্ষতিপূরণ পাবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আড়িয়ল বিলে প্রস্তাবিত বিমানবন্দরের জন্য জমির পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ হাজার একর। একই সঙ্গে এখানে আন্তর্জাতিক বঙ্গবন্ধু সিটিও নির্মাণ করা হবে। তবে ৫০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে বিমানবন্দর নির্মাণের কথা বলা হলেও বঙ্গবন্ধু সিটি নির্মাণে কত টাকা ব্যয় হবে সে বিষয়ে এখনো বলা হয়নি। গত বছরের ১২ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধু সিটি মুন্সীগঞ্জের আড়িয়ল বিলে নির্মাণের জন্য অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশ প্রতিদিন
———————————————–

[ad#bottom]