ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে সেনা মোতায়েন দাবি বিএনপির

পৌর নির্বাচনে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে ভোট কারচুপির আশঙ্কা প্রকাশ করে আবারও এসব বিভাগের পৌরসভায় সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। রবিবার দলের নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ ক্ষমতাসীন দলের ভয়ভীতিতে নির্বিকার হয়ে আছে। সরকার প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিভিন্ন পৌর এলাকায় সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বিনষ্ট করছে বলেই আমরা অতি দ্রুত ওই সব এলাকায় সেনা মোতায়েনের দাবি জানাচ্ছি। এ সময় গাজীপুর, গোপালপুর, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, টেকনাফ, দেওয়ানগঞ্জ, মৌলভীবাজার, কচুয়া, শ্রীমঙ্গল, নগরকান্দা, চৌহমুনী, মতলব, ছেংগারচর পৌরসভায় ৰমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা হামলা, মামলা, ভাংচুর চালিয়ে ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করা হয়। এছাড়া নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতে প্রধানমন্ত্রীর সংস্থাপন বিষয়ক উপদেষ্টা সারাদেশের জেলা প্রশাসকদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য।

বিরক্ত হয়ে সেনা মোতায়েন করেছি_ প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) এমন মনত্মব্যের প্রতিক্রিয়ায় নজরুল ইসলাম খান জানান, যে কারণে আমরা সেনা মোতায়েনের দাবি জানাচ্ছি, তা দূর করলে আমরা সেনা মোতায়েন চাইতাম না। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কি চান ক্ষমতাসীন দল ভোট কারচুপি করম্নক? উনি ( সিইসি) যদি তা না চান, তবে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সেনা মোতায়েন করবেন বলে আমরা আশা করছি।। নজরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বিভিন্ন পৌরসভায় ৰমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও সমর্থকদের হুমকি ও মারধর করছে। বিএনপির সমর্থকদের নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে হামলা, ভাংচুর করে ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীরা ভোটারদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। এছাড়া ঢাকা, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের ফরিদপুরে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মৌলভীবাজারে চীফ হুইপ উপাধ্যৰ আব্দুস শহীদ, চাঁদপুরে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরসহ ৰমতাসীন দলের বেশ কয়েক প্রভাবশালী নেতা বেশ কয়েকটি পৌরসভায় নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। নজরম্নল ইসলাম খান আরও অভিযোগ করেন, কিছু কিছু পৌরসভায় ৰমতাসীন দলের সংসদ সদস্যরা স্থানীয় প্রশাসনের ওপর প্রভাব খাটানোসহ বিভিন্ন কৌশলে বিএনপি প্রার্থীদের ফলকে নিজেদের পৰে ঘুরিয়ে দিয়েছেন। এ সময় তিনি লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ভোট পুনর্গণনার দাবি জানান। এছাড়াও মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বেশ কয়েকটি ভোটকেন্দ্রে গোলযোগের আশঙ্কা করেছে বিএনপি। এর মধ্যে রয়েছে পাঁচঘড়িয়াকান্দি সদর প্রাথমিক বিদ্যালয়, রমজানবেগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হাজী সুবেদ আলী বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র।

আজ সোমবার ঢাকা এবং মঙ্গলবার সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগের পৌরসভাগুলোতে ভোট গ্রহণ হবে। বিএনপির দাবি করা পৌরসভাগুলোর মধ্যে কয়েকটি পৌরসভায় ইতোমধ্যে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে বলে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে।

[ad#bottom]