মুন্সীগঞ্জে আড়িঁয়ল বিলের জমি অধিগ্রহনে মালিকদের কাছে চিঠি প্রেরন শুরু

জান্নাতুল ফেরদৌসৗ, মুন্সীগঞ্জ : বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক বিমান বন্দর নির্মানে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের আড়িঁয়ল বিলের জমি অধিগ্রহনের কাজ শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার জেলার শ্রীনগর উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নের আড়িঁয়ল বিলের জমি অধিগ্রহনের জন্য জমির মালিকদের কাছে প্রথম চিঠি দেয়া শুরু হয়। শ্রীনগর উপজেলা প্রশাসনের কাছ থেকে ওই সব ইউনিয়নে জমি অধিগ্রহনের তালিকা পাঠানোর পর মঙ্গলবার থেকে প্রত্যেক ইউনিয়নের ভূমি অফিস জমির মালিকদের কাছে চিঠি প্রেরন করছে। জেলার শ্রীনগর উপজেলার বাড়ৈখালী ইউনিয়ন,হাষাড়া, ষোলঘর, শ্রীনগর ও শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের জমির মালিকদের কাছে প্রাথমিক পর্যায়ে জমি অধিগ্রহনের ওই চিঠি দেয়া হয়। অন্যদিকে, স্থানীয় ভূমি অফিস থেকে বিমান বন্দর নির্মানে জমি অধিগ্রহনের প্রাথমিক চিঠি হাতে পেয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে শ্যামসিদ্দি ইউনিয়নের গাজীঘাট এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। ওই গ্রামের শতাধিক বাসিন্দা বিমান বন্দর নির্মান বন্ধের দাবীতে ওই মিছিল করে।

বিডি রিপোর্ট ২৪
——————————————-

আড়িয়াল বিলের জমির মালিকদের মধ্যে নোটিস বিতরণ অব্যাহত

আড়িয়াল বিলের জমি মালিকদের মধ্যে ৩ ধারার নোটিস বিতরণ চলছে। মূল বিমানবন্দরের জন্য শ্রীনগর উপজেলার ১০ হাজার ৯শ’ ৫৫ একর জমির জন্য ১৫ হাজার ১শ’ ৫টি নোটিস ইসু্য করা হয়েছে। মঙ্গলবার দিনভর ৫ শতাধিক নোটিস জারি হয়ে গেছে। প্রথমদিন সোমবার জারি হয়েছে প্রায় ১শ’ নোটিস। নোটিস গ্রহীতার সংখ্যা বেশি থাকায় মঙ্গলবার নোটিস জারির জন্য জনবল বাড়ানো হয়েছে। ৫ জনের স্থলে সেখানে নোটিস প্রদানের জন্য ৭জন নিয়োগ করা হয়েছে।

এসব তথ্য জানিয়ে মুন্সীগঞ্জের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ খান জানান, মানুষ চায় উন্নয়ন। এই বিমানবন্দর নির্মাণ হলে এ অঞ্চলের দৃশ্যপট পাল্টে যাবে। মানুষ আর এখানে বেকার থাকবে না। জনসাধারণ বিষযটি বুঝতে পারছে। তাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে জমি মালিকরা এই নোটিস গ্রহণ করেছে।

আড়িযাল বিল রক্ষা কমিটির পক্ষে অবস্থানকারী বাড়ৈখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইকবাল হোসেন মঙ্গলবার জানান, সোমবার শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের মতবিনিময়ে বিলের অনেক জমির মালিকও উপস্থিত থেকে বিল রক্ষার পক্ষে নানা যুক্তি তুলে ধরেন। তিনি জানান, বিমানবন্দরের পক্ষের স্থানীয় সচেতন নাগরিক সমাজ নামের সংগঠনের লোকজনও উপস্থিত ছিলেন। উভয় পক্ষ নিজ নিজ যুক্তিতে কথা বলেছে।

জনকন্ঠ
————————————–

[ad#bottom]