আজ কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুনের জন্মদিন

এই জীবনে সবাই সব কিছু পায় কিনা জানি না। তবে আমি অনেক কিছু পেয়েছি। সেজন্য বিধাতার কাছে অশেষ কৃতজ্ঞ।’ জীবনের চাওয়া-পাওয়া নিয়ে কথাগুলো বললেন কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন। তিনি ১৯৩৫ সালের এই দিনে তিনি ঢাকা জেলার বিক্রমপুরে জন্মগ্রহণ করেন। রাবেয়া খাতুন আরো বলেন, ‘মানুষের প্রত্যাশার কোনো শেষ নেই। সেজন্য আমিও আমৃত্যু কাজের মধ্যদিয়েই পৃথিবীর অপরূপ রূপটাকে দেখে যেতে চাই।’

রাবেয়া খাতুনের প্রথম প্রকাশিত গল্প ‘প্রশ্ন’ পূর্ব-পাকিস্তানের প্রগতিশীল সাপ্তাহিক ‘যুগের দাবিতে’ ছাপা হয়। পুস্তকাকারে প্রকাশিত প্রথম উপন্যাস ‘মধুমতি’। তিনি একসময় শিক্ষকতা করেছেন। সাংবাদিকতার সঙ্গেও দীর্ঘদিন যুক্ত ছিলেন। ইত্তেফাক, সিনেমা পত্রিকা ছাড়াও তার নিজস্ব সম্পাদনায় পঞ্চাশ দশকে বের হতো ‘অঙ্গনা’ নামের একটি মহিলা মাসিক পত্রিকা। তার প্রকাশিত পুস্তকের সংখ্যা ১শরও বেশি। এরমধ্যে রয়েছে উপন্যাস, গবেষণাধর্মী রচনা, ছোটগল্প, ধর্মীয় কাহিনী, ভ্রমণ কাহিনী, কিশোর উপন্যাস, স্মৃতিকথা ইত্যাদি। রেডিও, টিভিতে প্রচারিত হয়েছে অসংখ্য নাটক। তার ছোটগল্প ও উপন্যাসের চলচ্চিত্রায়ণ হয়েছে প্রেসিডেন্ট (১৯৬৬), কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি (২০০৩), মেঘের পরে মেঘ (২০০৪) এবং ধ্র“বতারা (২০০৬)।

সাহিত্যচর্চা ও লেখালেখির জন্য পুরস্কার হিসেবে পেয়েছেন একুশে পদক, বাংলা একাডেমী পুরস্কার, নাসিরুদ্দিন স্বর্ণপদক, হুমায়ূন স্মৃতি পুরস্কার, বাংলাদেশ লেখিকা সংঘ পুরস্কার, শের-ই-বাংলা স্বর্ণপদক, ইউরো শিশুসাহিত্য পুরস্কারসহ আরো অসংখ্য পদক। তাঁর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি…

[ad#bottom]