বিনোদিনী অপার সৌন্দর্যের প্রতীক

আজ জাতীয় নাট্যশালার পরীক্ষণ হলে মঞ্চস্থ হবে ঢাকা থিয়েটার প্রযোজিত ও নাসির উদ্দিন ইউসুফ নির্দেশিত মঞ্চের আলোচিত নাটক ‘বিনোদিনী’। এতে একক অভিনয় করেছেন শিমূল ইউসুফ। নাটক ও সাম্প্র্রতিক ব্যস্ততা নিয়ে আজকের ‘হ্যালোঃ’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি

আজ বিনোদিনীর ৮৪তম প্রদর্শনী। নাটকটি এতদূর আসার ব্যাপারে আপনার অনুভূতি কি?
এটি বিনোদিনী দাসীর আÍজীবনী থেকে নেয়া। সত্যিকার অর্থে বিনোদিনী অপার সৌন্দর্যের প্রতীক। এ ধরনের ব্যতিক্রমধর্মী একটি চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। দর্শকরা নাটক এবং আমার অভিনয়কে ভালোভাবে গ্রহণ করেছে বলেই এতদূর আসা।

সম্প্রতি বোম্বের পুণেতে ‘বিনোদিনী’ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেত্রীর স্বীকৃতি পেয়েছেন, এই সাফল্যের অনুভূতি কেমন।
যে কোন স্বীকৃতিই আনন্দের। পুণেতে অনুষ্ঠিত এই উৎসবে মহারাষ্ট্রের বড় বড় অনেক নাট্যদল নাটক পরিবেশন করেছে। তাদের মধ্যে থেকে এধরনের স্বীকৃতি অনেক ভালোলাগার বিষয়। তাছাড়া স্বীকৃতি শুধু আনন্দই দেয় না, পাশাপাশি দায়িত্বও বাড়িয়ে দেয়। এই স্বীকৃতি আমাকে সবসময় অনুপ্রাণিত করবে।

‘বিনোদিনী’ যদি গ্রন্থিত বা গবেষণা নাট্য হয় তাহলে এর রচয়িতা কে ?
এটি বিনোদিনী দাসীর আÍজীবনী। তার ওপর বিভিন্ন লেখকের লেখা থেকে এর গ্রন্থনা ও গবেষণা করেছেন সাইমন জাকারিয়া। গ্রন্থনা ও গবেষণার মূল উপদেষ্টা ছিলেন নাট্যাচার্য সেলিম আল দীন। নাটকটির মুখবন্ধটিও লিখেছেন সেলিম আল দীন।

নাসির উদ্দিন ইউসুফের ‘গেরিলা’ চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। চলচ্চিত্রটির কাজ সম্পর্কে বলুন?
আমি কস্টিউমস ডিজাইন করেছি। শুটিং সম্প্রতি শেষ হয়েছে। সঙ্গীতের কাজটিও আমাকে করতে হচ্ছে। যে জন্য খুব ব্যস্ত সময় পার করছি।

মঞ্চের মানুষ হয়ে গানও করছেন। গান নিয়ে ভবিষ্যৎ কোনও পরিকল্পনা রয়েছে কি?
হ্যাঁ, নাটকের গান নিয়ে বিশেষ পরিকল্পনা রয়েছে। ’৭৪-’৭৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত নাটকে আমার যতগুলো গান আছে, সবগুলো গানকে রেকর্ড করে সংরক্ষণের প্রবল ইচ্ছা রয়েছে। শুধু ঢাকা থিয়েটার নয়, এদেশের নাট্যকর্মীদের জন্য কাজটি করতে চাই।

১৯৭২-এ প্রয়াত আবদুল্লাহ আল মামুনের রচনা ও নির্দেশনায় ‘উজান পবন’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে মঞ্চে যাত্রা। এতটা পথপরিক্রমায় প্রাপ্তি কতটুকু?
প্রাপ্তি অনেক। দর্শক এবং মঞ্চাঙ্গনের মানুষের অনবদ্য ভালোবাসাই আমাকে এতদূর নিয়ে এসেছে। তাদের প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধা-ভালোবাসা আজন্মের। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত এ ভালোবাসার বন্ধনে থাকতে চাই।

[ad#bottom]