বিএনপির ও জাপার একক প্রার্থী, আওয়ামী লীগের একাধিক

মুন্সিগঞ্জে নির্বাচন জ্বরে আক্রান্ত সবকিছু
মোহাম্মদ সেলিম
মনোনয়ন দাখিলের পরপরই জমে উঠেছে পৌর নির্বাচন। প্রার্থীরা নানা কৌশল অবলম্বন করে চলেছে। দলের এবং বিভিন্ন মহল্লার নেতৃস্থানীয়দের সমর্থন পেতেও শুরু করেছে নানা কৌশল। মুন্সিগঞ্জ জেলার মোট দু’টি পৌরসভার দু’টোতেই হচ্ছে নির্বাচন। জেলা শহর মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে ভোটযুদ্ধে নেমেছে ৮১ প্রার্থী। এর মধ্যে মেয়র পদেই ১০ জন। এখানে মেয়র পদে বিএনপি একক প্রার্থী দিয়েছে। শহর বিএনপির সভাপতি এ কে এম ইরাদত মানু দলীয় প্রার্থী হয়ে অনেকটা এগিয়ে রয়েছেন। তাঁর মনোনয়ন পূরণসহ যাবতীয় কাজে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুল উপস্থিত ছিলেন। এতে নেতাকর্মীরাও এখানে উজ্জিবিত। তবে এই আসন থেকে বিগত নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী সাবেক তথ্যমন্ত্রী এম শামসুল ইসলাম কি ভূমিকা নেন সেদিকে তাকিয়ে আছে তাঁর অনুসারী বিএনপির নেতা কর্মীরা। অন্যদিকে এই পৌরসভায় আওয়ায়মী লীগের প্রার্থী রয়েছে বেশ ক’জন। তবে সুবিধা জনক অবস্থায় রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের পুত্র কেন্দ্রীয় যুব লীগ নেতা আলহাজ মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব। এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল হোসেন, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহতাব উদ্দিন কল্লোল প্রার্থী হয়েছেন। প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের ঘরনার হিসাবে পরিচিত সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম এ কাদের মোল্লা। জাতীয় পার্টি থেকে একমাত্র প্রার্থী হয়েছেন কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান বর্তমান মেয়র এ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান। তিনি বিগত সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে সদর আসনে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। পৌর নির্বাচনের দরকষাকষি অবস্থায় জাতিয় পার্টি যে ৪টি পৌর সভার জন্য জোরভাবে তাদের প্রার্থী দাবী করেছেন। তার মধ্যে তিনি রয়েছেন।

এসব হিসাব কিতাবে মেয়র পদের নির্বাচনে হবে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। ধলেশ্বরী তীরের এই পৌরসভায় কাউন্সিলর পদে ৫৭ ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১৪ জন মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এরমধ্যে ১ নং ও ২নং ওয়ার্ডে ৬ জন করে। ৩ নং ওয়ার্ডে ৭জন। ৪ ও ৫ নং ওয়ার্ডে ৫জন করে। ৬নং ওয়ার্ডে সর্বোচ্চ ১০ এবং ৭নং ওয়ার্ডে ৮জন। ৮ ও ৯নং ওয়ার্ডে ৫৮ জন করে প্রার্থী কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন জমা করেছেন। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১ ও ২ নং ওয়ার্ডে প্রার্থী হয়েছেন ৫ জন করে এবং ৩ নং ওয়ার্ডে প্রার্থী সংখ্যা ৪। প্রার্থীরা উৎসবের আমেজে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। দুটি পৌর সভায়ই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক প্রার্থীসহ মোট মনোনয়ন জমা দিয়েছেন ১৩২ প্রার্থী। কোন পদেই একক প্রার্থী নেই। জেলা সদরের ২ টি পৌরসভায় মোট ১৭ জন মেয়র পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। কাউন্সিলর পদে ৯৪ জন ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ২১ জন মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে মুন্সিগঞ্জ পৌরসভায় ১০ জন মেয়র পদে মনোনয়ন জমা দেন। প্রার্থীরা দিন রাত এখন লবিং ও নির্বাচন কৌশল নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। নতুন নির্বাচন আচরণ বিধির কারণে পোস্টার এবং মিছিল দেখা না গেলেও নির্বাচন নিয়ে আলোচনা আর উৎসবের কমতি নেই। এখন নির্বাচন জ্বরে আক্রান্ত সবকিছু। পারিবারিক, সামাজিক আচার অনুষ্ঠানেও নির্বাচনী কৌশল প্রয়োগ হচ্ছে।

বিক্রমপুর সংবাদ
———————————————-

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভায় বিএনপির একক প্রার্থী হলেও আ’লীগের একাধিক প্রার্থী

জান্নাতুল ফেরদোসৗ মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির একক প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও আ’লীগের একাধিক প্রার্থী মেয়র পদে মনোনয়ন দাখিল করেছেন। এছাড়া জাতীয় পার্টি থেকেও একক প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেন। এতে বিএনপি প্রার্থী সুবিধাজনক অবস্থানে থাকায় নেতাকর্মীদের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করলেও একাধিক প্রার্থী হওয়ায় আ’লীগ নেতাকর্মীরা বিপাকে পড়েছে । এখানে আ’লীগ নেতৃবৃন্দ একক প্রার্থী মনোনয়ন দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নির্বাচনে মেয়র পদে জেলা আ’লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের ছেলে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা ফয়সাল আহমেদ বিপ্লব, জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো.জামাল হোসেন, শহর আ’লীগের সাধারন সম্পাদক মাহতাবউদ্দিন কল্লোল আ’লীগের প্রার্থী বলে প্রচার চালাচ্ছেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা সদর কমান্ডার আব্দুল কাদির মোল্লা ও আরিফুর রহমান আরিফও আ’লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। এ অবস্থায় আ’লীগ নেতাকর্মী ও সমর্থকরা কার পক্ষে নির্বাচন করবেন তা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। তবে জেলা আ’লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের ছেলে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা ফয়সাল আহমেদ বিপ্লবের পক্ষে অধিকাংশ নেতাকর্মী ও সমর্থক নির্বাচনি কাজ শুরু করেছেন। অপরদিকে শহর বিএনপির সভাপতি ইরাদত হোসেন মানুকে চারদলীয় জোটের একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়। এছাড়া জাতীয় পার্টি থেকে দলের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও বর্তমান মেয়র এডভোকেট মজিবুর রহমান মনোনয়ন দাখিল করেছেন।

বিডি রিপোর্ট ২৪
————————————————————

[ad#bottom]