বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর আড়িয়ল বিলে নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন

হুমায়ুন কবির খোকন: বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর, সিরাজদিখান ও ঢাকা জেলার দোহার এবং নবাবগঞ্জ উপজেলা নিয়ে বিস্তৃত আড়িয়ল বিলে নির্মাণে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া ওই এলাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সিটি নির্মাণেও অনুমোদন দিয়েছেন। গতকাল দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার কার্যালয়ে কমিটির পরিদর্শন প্রতিবেদনের আলোকে তথ্যচিত্রসহ পাওয়ারপয়েন্ট দেখে বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর নির্মাণের স্থানের বিষয়ে এ নির্দেশনা দেন।

বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী জিএম কাদের প্রকল্পের হালনাগাদ অগ্রগতি সম্পর্কে সূচনা বক্তব্য দেন। পরে বিমান ও পর্যটন সচিব শফিক আলম মেহেদী বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। নতুন বিমানবন্দরের কারিগরি বিষয় তুলে ধরেন সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান। প্রশাসনিক বিষয় তুলে ধরেন বিমানবন্দর সেলের প্রধান জয়নাল আবদিন তালুকদার। এ সময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি, তিন বাহিনী প্রধান, ডিজি ডিজিএফআই, বঙ্গবন্ধু বিমানবন্দর সেলের প্রধান উপস্থিত ছিলেন।

এ সংক্রান্ত কমিটি মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর, সিরাজদিখান ও ঢাকা জেলার দোহার এবং নবাবগঞ্জ উপজেলা নিয়ে বিস্তৃত আড়িয়ল বিল, শরিয়তপুর জেলার জাজিরা, মাদারীপুর জেলার শিবচর ও ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গার মালিগ্রাম এলাকাসহ পদ্মা নদীর উত্তর ও দক্ষিণ পাড়সহ সম্ভাব্য নতুন এ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য স্থান পরিদর্শন করে প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরে। বিমানবন্দরের জন্য প্রস্তাবিত জমির পরিমাণ প্রায় ২৫ হাজার একর। নতুন বিমানবন্দরের পাশে আধুনিক মানের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সিটি করা হবে। ৫০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পিপিপির মাধ্যমে এ বিমানবন্দরটি নির্মাণ হবে।

আমাদের সময়
—————————————————-

সিরাজদিখান আড়িয়াল বিলে বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দর ও সিটি হচ্ছে

ময়মনসিংহের ত্রিশাল নয়, ঢাকার দোহার ও নবাবগঞ্জ এবং মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার আড়িয়াল বিলে নির্মিত হতে চলেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। বিমানবন্দরকে ঘিরে নির্মিত হবে অত্যাধুনিক ‘বঙ্গবন্ধু সিটি’। রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছেন।

অনুমোদনের পাশাপাশি বিমানবন্দর ও বঙ্গবন্ধু সিটি নির্মাণে ভূমি অধিগ্রহণেরও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। শিগগিরই ভূমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু করবে প্রকল্প বাস্তবায়ন সংক্রান্ত সেল।

রোববার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু সিটি ও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের নানাদিক পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করা হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী জিএম কাদের, প্রধানমন্ত্রীর প্রশাসন ও সংস্থাপন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, বিমানবন্দর নির্মাণ সংক্রান্ত সেলের প্রধান ও যুগ্ম-সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদারসহ ঊর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
জয়নাল আবেদীন তালুকদার প্রধানমন্ত্রীর নীতিগত অনুমোদনের সত্যতা নিশ্চিত করে রোববার রাতে বাংলানিউজকে বলেন, ‘রাজধানীর কাছেই দোহার, নবাবগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার আড়িয়াল বিলেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মিত হচ্ছে। এ বিমানবন্দরকে ঘিরে নির্মাণ করা হবে অত্যাধুনিক বঙ্গবন্ধু সিটি।’ তিনি আরও জানান, আজ (রোববার) দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ের নীতিগত অনুমোদন দেওয়ার পাশাপাশি দ্রুত ভূমি অধিগ্রহণেরও নির্দেশ দিয়েছেন।

সূত্র জানায়, আড়িয়াল বিলে বঙ্গবন্ধু সিটি স্থাপনের জন্য ২৫ হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে। উন্নত বিশ্বের আদলে সব ধরনের নাগরিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে এ সিটি স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু সিটির প্রাথমিক নকশায় বিমানবন্দর, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মনোরেল, সুবিশাল বাণিজ্যিক ভবন, পর্যটনকেন্দ্র, খেলার মাঠ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ফায়ার স্টেশন, নিরাপত্তা-বেষ্টনী, উন্নত সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং আধুনিক ও পরিকল্পিত ভবন স্থাপনসহ অত্যাধুনিক সব সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সেলপ্রধান জয়নাল আবেদীন তালুকদার জানান, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর স্থাপন সংক্রান্ত একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে।’

বিডি রিপোর্ট ২৪
——————————————————–

আড়িয়াল বিলে বঙ্গবন্ধু আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দর ও সিটি হচ্ছে

ময়মনসিংহের ত্রিশাল নয়, ঢাকার দোহার ও নবাবগঞ্জ এবং মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার আড়িয়াল বিলে নির্মিত হতে চলেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। বিমানবন্দরকে ঘিরে নির্মিত হবে অত্যাধুনিক ‘বঙ্গবন্ধু সিটি’।

রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছেন।

অনুমোদনের পাশাপাশি বিমানবন্দর ও বঙ্গবন্ধু সিটি নির্মাণে ভূমি অধিগ্রহণেরও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। শিগগিরই ভূমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু করবে প্রকল্প বাস্তবায়ন সংক্রান্ত সেল।

রোববার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু সিটি ও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণের নানাদিক পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপন করা হয়। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী জিএম কাদের, প্রধানমন্ত্রীর প্রশাসন ও সংস্থাপন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, বিমানবন্দর নির্মাণ সংক্রান্ত সেলের প্রধান ও যুগ্ম-সচিব জয়নাল আবেদীন তালুকদারসহ ঊর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

জয়নাল আবেদীন তালুকদার প্রধানমন্ত্রীর নীতিগত অনুমোদনের সত্যতা নিশ্চিত করে রোববার রাতে বাংলানিউজকে বলেন, ‘রাজধানীর কাছেই দোহার, নবাবগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার আড়িয়াল বিলেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মিত হচ্ছে। এ বিমানবন্দরকে ঘিরে নির্মাণ করা হবে অত্যাধুনিক বঙ্গবন্ধু সিটি।’

তিনি আরও জানান, আজ (রোববার) দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ বিষয়ের নীতিগত অনুমোদন দেওয়ার পাশাপাশি দ্রুত ভূমি অধিগ্রহণেরও নির্দেশ দিয়েছেন।

সূত্র জানায়, আড়িয়াল বিলে বঙ্গবন্ধু সিটি স্থাপনের জন্য ২৫ হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে। উন্নত বিশ্বের আদলে সব ধরনের নাগরিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে এ সিটি স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু সিটির প্রাথমিক নকশায় বিমানবন্দর, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মনোরেল, সুবিশাল বাণিজ্যিক ভবন, পর্যটনকেন্দ্র, খেলার মাঠ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ফায়ার স্টেশন, নিরাপত্তা-বেষ্টনী, উন্নত সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং আধুনিক ও পরিকল্পিত ভবন স্থাপনসহ অত্যাধুনিক সব সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সেলপ্রধান জয়নাল আবেদীন তালুকদার বাংলানিউজকে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর স্থাপন সংক্রান্ত একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে।’

উবায়দুল্লাহ বাদল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
——————————————————–

[ad#bottom]