মুন্সীগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী সিটি রাসেল পুলিশকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে

ঢাকা থেকে গ্রেফতার
মুন্সীগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতারকৃত ইয়াবা সিটি রাসেলের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে পুলিশ। পুলিশের একটি সূত্র জানায়, এলাকার অবৈধ অস্ত্রে ভাণ্ডার আন্ডার ওয়ার্ল্ডের নিয়ন্ত্রণসহ নানা অপরাধের তথ্য তার নখদর্পণে। এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সে পুলিশকে দিয়েছে। সদর থানা পুলিশ শুক্রবার সন্ধ্যায় জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। চারটি মামলায়ই সিটি রাসেলের বিরুদ্ধে চার্জশীট হয়েছে এবং ওয়ারেন্ট পেন্ডিং ছিল। রিমান্ড আবেদন করা যায়নি। তাকে রিমান্ডে আনা গেলে অনেক অপরাধের সন্ধান মিলবে। তবে তার বিরম্নদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ আসতে শুরু করেছে। তবে যে তথ্য রাসেল দিয়েছে পুলিশ এই বিষয়ে আরও খোঁজখবর করছে।

এদিকে বুধবার রাতে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

হজ পালন শেষে দেশে ফিরে আসার পথে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পার হওয়ার সময় এই অঞ্চলের প্রথম ইয়াবা আমদানিকারী রাসেলকে পুলিশ আটক করে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় নিয়ে আসে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মুন্সীগঞ্জের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী সিটি রাসেলের বিরম্নদ্ধে ৪টি চাঁদাবাজি মামলাসহ বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। সদর উপজেলার রামপাল, বজ্রযোগিনী এবং মিরকাদিম পৌরসভাসহ আশপাশ এলাকায় তার নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী দীর্ঘদিন ধরে সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজি করে আসছিল। শহরসহ আশপাশের এলাকায় ইয়াবা ট্যাবলেট আমদানির অন্যতম প্রধান উদ্যোক্তা সিটি রাসেল। সিটি রাসেল গ্রেফতারের খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বসত্মি ফিরে আসে। সে এক সময় সিটি বাচ্চুর অন্যতম সহযোগী ছিল। সিটি রাসেল মুন্সীগঞ্জের পাশাপাশি ঢাকার বাদামতলী ও আশপাশ এলাকায় সন্ত্রাসী কর্যক্রম চালিয়ে আসছিল বলে সদর থানার ইন্সপেক্টর ইনভেস্টিকেশন মোঃ মুজিবুর রহমান জানান।

[ad#bottom]