আলুর বাজার অস্থির

শফিকুল ইসলাম:মৌসুমের শেষ সময়ে এসে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারসাজিতে অস্থির হয়ে উঠেছে আলুর বাজার। এ চক্রের সঙ্গে কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের কেউ কেউ জড়িত বলে জানা গেছে। তাদের যৌথ কারসাজিতে ১২ থেকে ১৪ টাকা কেজি দরের আলু কোনো কারণ ছাড়াই হঠাৎ ২০ টাকায় বিক্রি হতে শুরু করেছে। কুরবানির আগে-পরে তা ২৪ থেকে ২৭ টাকা কেজি দরেও বিক্রি হযেছে। মাঠ থেকে নতুন আলু উঠতে শুরু করেছে। সে আলু বাজারে আসতে আরো কিছুদিন সময় লাগবে। এ সময়ের মধ্যে অতিরিক্ত মুনাফা হাতিয়ে নেয়ার লক্ষ্যেই এ চক্রটি কাজ করছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিস্ট ব্যবসায়ীরা। তারা জানিয়েছেন, কোল্ড স্টোরেজে রাখা আলুর বেশিরভাগই মালিকদের নিজেদের। তারাই সিন্ডিকেট করে কোল্ডস্টোরেজ থেকে সরবরাহ কমিয়ে দিয়ে বাজারে এক প্রকার কৃত্রিম সংকটের গুজব ছড়িয়ে নিজেদের পছন্দের দামে আলু ছাড়ছে। ফলে বাজারে হঠাৎ করে আলুর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

কাওরান বাজারের আলু ব্যবসায়ী আবদুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, মৌসুমের শেষ সময় পুরান আলুর স্বাদ ও গন্ধ সবই নষ্ট হয়ে যায়। ফলে দাম ও চাহিদা কমে যায়। একইভাবে নতুন আলুর স্বাদ ও ঘ্রাণের কারণেই ক্রেতাদের কাছে এর কদর বেশি থাকে। কিন্তু এ বছর হয়েছে তার উল্টো। বর্তমান বাজারে বিক্রি হওয়া বেশির ভাগ আলুতেই বীজ গজিয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের কয়েকজন আলু চাষী টেলিফোনে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, লোডশেডিংয়ের সময় জেনারেটর চালিয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার কথা থাকলেও কোল্ড স্টোরেজ মালিকদের অনেকেই তা করেন নি। দীর্ঘ লোডশেডিংয়ের ফলে অনেক আলু পঁচে গেছে। যা পঁচতে পারেনি সেই আলুতে গজিয়ে গেছে চারা।

এ প্রসঙ্গে বাণিজ্য সচিব গোলাম হোসেন জানিয়েছেন, বাজারে নতুন আলু উঠতে শুরু করেছে। নতুন আলু পুরোপুরি উঠে এলে দাম এমনিতেই কমে যাবে।

[ad#bottom]