যুক্তরাষ্ট্রে বিপুল উৎসাহে ঈদ-উল-আযহা উদ্যাপন

ড. ফখরুদ্দীনের ঈদ শুভেচ্ছা
যুক্তরাষ্ট্রে ১৬ নবেম্বর অধিকাংশ বাংলাদেশী পবিত্র ঈদের নামাজ আদায় করেছেন। কমিউনিটির ক্ষুদ্রতম একটি অংশ ঈদের নামাজ আদায় করেন পরদিন ১৭ নবেম্বর। নিউইয়র্কে ১৬ নবেম্বর প্রধান প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় ব্রুকলীনে বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টার, কুইন্সে জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার, এস্টোরিয়ায় আল আমিন মসজিদ, ওজনপার্কে আলফোরকান মসজিদ, ব্রুকলীনে ইসলামিক সেন্টার ও দারম্নল জান্নাহ মসজিদ, এস্টোরিয়ায় বায়তুল মোকাররম মসজিদ, ওজনপার্কে দারুস সুন্নাহসহ বিভিন্ন মসজিদে। ব্রুকলীনে বাংলাদেশ মুসলিম সেন্টারে দুটি জামাত অনুষ্ঠিত হয় ৫ সহস্রাধিক মুসল্লির অংশগ্রহণে।

বাংলাদেশের বহুল আলোচিত ১/১১ তে গঠিত কেয়ারটেকার সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহম্মেদ ঈদের নামাজ আদায় করেন ওয়াশিংটন ডিসিতে। ঐ কেয়ারটেকার সরকারের মূল চালিকাশক্তি হিসেবে পরিচিত জেনারেল মঈন উ আহম্মেদ ঈদের নামাজ আদায় করেন ফ্লোরিডায় পামবিচের একটি মসজিদে। ১/১১ সরকারের অন্যতম প্রধান ভিকটিম বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান নামাজ আদায় করেছেন যুক্তরাজ্যে পূর্ব লন্ডনের একটি মসজিদে। অপরদিকে নিউইয়র্ক সিটির জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অনুষ্ঠিত ঈদ জামাতে অংশ নেন ১/১১ সরকারের আরেক আলোচিত ব্যক্তি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল বারী। এ মসজিদে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল সাবি্বর আহমেদ চৌধুরীও নামাজ আদায় করেন। উলেস্নখ্য যে, তারা সকলেই ১৬ নবেম্বর ঈদ পালন করেন। ড. ফখরম্নদ্দীন আহম্মেদ এবং জেনারেল মঈন গরম্ন কুরবানি দিয়েছেন। মহাজোট সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর দেশে ফিরে যাবার নির্দেশ অমান্য করে নিউইয়র্কে ফেরার জীবন-যাপনকারী ব্রিগেডিয়ার বারী কী পশু কুরবানি দিয়েছেন তা জানা সম্ভব হয়নি। বার্তা সংস্থা এনার সঙ্গে টেলিফোনে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়কালে ড. ফখরম্নদ্দীন এবং জেনারেল মঈন প্রবাসীদের ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এবং বাংলাদেশের মানুষের সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন।

[ad#bottom]