শ্রীনগরে গৃহবধু অগ্নিদগ্ধ, ঝলসে গেছে পুরো শরীর

হত্যা না আত্মহত্যার চেষ্টা
মুন্সিগঞ্জে শ্রীনগর উপজেলায় পারিবারিক কলহের জের ধরে আগুনে পুরে গেছে লিপি আক্তার নামের এক গৃহবধুর শরীর। আশংকাজনক অবস্থায় লিপিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাকে কেরোসিন ঢেলে আগুনে পুরে হত্যা করার জন্য আগুন দেওয়া হয়েছে না কি আত্মহত্যার জন্য নিজের গায়ে নিজে আগুন দিয়েছে এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। জানা যায় আগুন লাগার আধা ঘন্টা আগেও লিপিকে মারধর করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে কামারগাঁও গ্রামে ঘটে এ ঘটনা।

কামারগাও গ্রামের সজল খাঁনের পুত্র জসিম খানের সঙ্গে ৫ বছর আগে নিজেদের পছন্দ মত খুলনা জেলার মেয়ে লিপি অক্তারের বিয়ে হয়। হিন্দু সম্প্রদায়ের মেয়ে লিপি প্রেম করে জসিমকে বিয়ে করে মুসলমান ধর্ম গ্রহন করেন। তাদের ঘরে এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে। আশপাশের লোকজন জানান বিয়ের পর থেকেই কোন না কোন দোষ ধরে লিপির উপর নির্যাতন চালানো হত। এর মধ্যে স্বামী বিদেশ গেলেও তার উপর নির্যাতন বন্ধ হয়নি। কয়েক দফা সালিশ বৈঠকও হয়েছে এ নিয়ে এর আগে লিপিকে বাড়ী থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল তখন সে অন্যের বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছিল এবং থানায় অভিযোগ পত্র দায়ের করেছিল তখনও সালিশের মাধ্যমে তাকে শশুর বাড়ীতে তুলে দেওয়া হয়। স্বামী বিদেশ থেকে দেশে আসার পর ২ মাস আগেও এ নিয়ে সালিশ বসে।

[ad#co-1]