কাঠপট্টি খেয়াঘাটে যাত্রী দুর্ভোগ

কাঠপট্টি খেয়াঘাটে ধলেশ্বরী নদী পার হতে ইজারাদারের খামখেয়ালিপনার কারণে যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। যেন দেখার কেউ নেই। খেয়াঘাটটির উত্তর পাড় নারায়ণগঞ্জ জেলা এবং দক্ষিণ পাড় মুন্সীগঞ্জ জেলার আওতায় পড়েছে। খেয়াঘাটটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় হওয়ায় এ ঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রীকে পারাপার হতে হয়। যাত্রীবাহী ট্রলার কানায় কানায় পূর্ণ হলেও সময়মতো ছাড়ে না ইজারাদার। ফলে অযথা বসে থাকা ছাড়া আর কোনো পথ থাকে না পারাপাররত যাত্রীদের।

খেয়াঘাটটি চলতি অর্থবছরে প্রায় ৪০ লাখ টাকায় ইজারা দেয়া হয়। কয়েক পক্ষের রেষারেষির কারণে তুলনামূলক বেশি টাকায় ঘাটের ডাক ওঠে। আর গচ্চা দিতে হয় যাত্রীসাধারণকে। নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদ যৌথভাবে ঘাট ইজারা দিলেও কার্যক্ষেত্রে ঘাট তদারকিতে তাদের কাউকে দেখা যায় না। সরকার প্রতিজন পারাপারের জন্য ৪ টাকা নির্ধারণ করে দিলেও তা মানা হচ্ছে না।

বর্তমানে এ ঘাটে সকাল থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ৪ টাকা নেয়ার কথা থাকলেও তারা সন্ধ্যা হওয়ার আগে থেকেই নেয়া শুরু করে ৫ টাকা। আর ৯টার পর ৫ টাকা নেয়ার কথা থাকলেও তারা নিচ্ছে ১০ টাকা, এভাবেই চলছে দির্ঘদিন। কেউ প্রতিবাদ করলে অপদস্থ হতে হয়।

ঘাটে পারাপারের জন্য নদীর দুই পাড়ে মূল্য তালিকা টানিয়ে দেয়ার নিয়ম থাকলেও তা মানছে না ইজারাদার। আর এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট দুই জেলার জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষ একেবারে উদাসীন। আশা করি, এবার তাদের ঘুম ভাঙবে আর জনগণ ইজারাদারের হাত থেকে রেহাই পাবে।

হাজী মো. মজনু খান

[ad#co-1]