মুন্সিগঞ্জে টেন্ডরবাজি নিয়ে আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় ব্যাপক আলোচনা

ইভটিজিং প্রতিরোধে প্রতি ইউনিয়নে সচেতনতামূলক সভা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটি। ব্যাপক অংশগ্রহনের মাধ্যমে এই সভায় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গরা অংশ নিবেন। রবিবার জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় ইভটিজিং নিয়ে ব্যাপক আলোচনার পর এই সিদ্ধান্তের পাশাপাশি প্রতিটি স্কুলে অভিযোগ বাক্স স্থাপন নিশ্চিত এবং হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী গঠিত কমিটির কার্যক্রম মনিটরের সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া টেন্ডারবাজি নিয়েও সভায় আলোচনা হয়। এলজিইডি, সড়ক ও জনপথ এবং মুন্সিগঞ্জ পৌরসভায় একটি সিন্ডিগেটের মাধ্যমে টেন্ডারবাজি হচ্ছে বলে সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনিসুজ্জামান সভায় অভিযোগ করেন। প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা ভয়ে মুখ খুলেন না। টেন্ডারবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়ে জেলা আওয়ামীন ব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো.জামাল হোসেলেন, জেলা শহরের এই সিন্ডিগেটটি শহর ও সদর উপজেলা ছাড়াও টঙ্গীবাড়ি, গজারিয়ার টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করছে। এব্যাপারে পুলিশকে কার্যকরী ভুমিকা পালনেরও উপরও গুরুত্বারোপ করে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়েও প্রতিটি টেন্ডার জমার বাক্স স্থাপনের দাবী জানান। আসন্ন আলু মৌসুমকে সামনে রেখে যাতে কোন স্বার্থানেষী মহল কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটাতে পারে এবং চরাঞ্চলের বিবধমান দু’গুপের সহিংসতা বন্ধে কাঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্ত হয়।

সিরাজদিখান উপজেলার চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, তাঁর উপজেলার আইন শৃঙ্খলা সবচেয়ে খারাপ। কয়েক দিনের মাথায় চিত্রকোর্টে ২টি গুপ্ত হত্যা হয়েছে। এছাড়া মারামারিসহ নানা অপকর্মের সাথে চিহ্নিত কিছু লোক জড়িত তাদের গ্রেফতার জরুরী। এছাড়া মাওয়ায় আসন্ন ঈদে নিরাপদে ঘরমুখো মানুষকে পার করার ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা, মাদক ও যানজট নিয়ন্ত্রণসহ জেলার বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহনের সিদ্ধান্ত হয়। শ্রীনগর উপজেলার বাড়ৈখালীতে পুলিশ ফাঁড়ি স্থান এবং মাওয়া চৌরাস্তায় পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়।

জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলমের সভাপতিতত্বে আরও বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো.শফিকুল ইসলাম, মিরকাদিম মেয়র মোহাম্মদ হোসেন রেনু, প্রেসক্লাব সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, ভাইস চেয়ারম্যান মেহেরুন্নেসা নাজমা, শামসুল কবির মাস্টার, এ্যাডভোকেট নাসিমা আক্তার, কুতুবউদ্দিন আহম্মেদ প্রমুখ।

[ad#co-1]