“সাপ্তাহিক” এর টোকিও প্রতিনিধির জাপান সরকারের নিবন্ধন লাভ

বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত “সাপ্তাহিক” এর টোকিও প্রতিনিধি প্রবাসীদের পরিচিত মুখ রাহমান মনি (মোঃ মোখলেসুর রহমান) সাংবাদিকতায় জাপান সরকার কর্তৃক নিবন্ধিত হয়েছেন। জাপান সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের প্রেস বিভাগ থেকে সম্প্রতি তিনি এই নিবন্ধন লাভ করেন।

দেশের বেশ কয়েকটি পত্রিকার প্রতিনিধি রয়েছেন জাপানে। প্রথমআলো ও ডেইলি স্টারের জাপান প্রতিনিধি মঞ্জুরম্নল হক জাপান ফরেন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ‘দৃক’-এর ফটোসাংবাদিক খন্দকার আনিসুর রহমান সেখানে ফরেন প্রেস ক্লাবের সদস্য। সাপ্তাহিক-এর জাপান প্রতিনিধি কাজী ইনসানুল হকও ফরেন প্রেস ক্লাবের সদস্য।

আর এবার রাহমান মনি জাপান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রেস বিভাগে নিবন্ধিত হলেন। এই কার্ড পাবার ফলে তিনি এখন থেকে জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গুরম্নত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সেসব সংবাদ সংগ্রহ করে রিপোর্ট করতে পারবেন। এটি জাপান প্রবাসী বাংলাদেশের কোনো সংবাদকর্মীর জন্য তো বটেই, সেখানকার বাঙালি সমাজ এবং দেশের জন্যও সম্মানজনক ঘটনা।

সাপ্তাহিক- এর জন্মলগ্ন থেকে তিনি টোকিও প্রতিনিধি হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ১৯৯০ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন সাপ্তাহিকিতে প্রবাস জীবন কলামে নিয়মিত লিখে আসছেন। সাপ্তাহিক বিচিত্রায় তার লেখালিখির হাতে খড়ি। এরপর যায়যায় দিন, সাপ্তাহিক ২০০০ হয়ে বর্তমানে সাপ্তাহিক এর টোকিও প্রতিনিধি। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকাসহ প্রবাস থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকায় লেখালেখি করেন।

মুনশীগঞ্জ জেলার মাঠপাড়ার সন্তান মোঃ মোখলেসুর রহমান (রাহমান মনি) ১৯৮১ সালে স্থানীয় কে, কে, গভঃ ইনষ্টিটিউশন থেকে এস,এস,সি, ১৯৮৩ সালে হরগঙ্গা সরকারী কলেজ থেকে এইচ,এস,সি এবং একই প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯৮৫ সালে বিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রিলাভ করেন। চাকুরীর প্রয়োজনে জাপান প্রবাস জীবনকে বেছে নেন। সেই থেকে আজও জাপান অবস্থান করছেন। জাপান থেকে তিনি ভাষা শিক্ষা কোর্স শেষ করেন ইন্টারন্যাশনাল ল্যাঙ্গুয়েজ ইনষ্টিটিউট থেকে।

সাংবাদিকতার বাইরেও তিনি একজন সফল সংগঠক। সাত বছর বয়স থেকে বড় ভাই মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের হাত ধরে শিশু সংগঠন কচি-কাঁচার মেলা দিয়ে সাংস্কৃতিক জগতে প্রবেশ করেন। বাংলাদেশ স্কাউট এবং ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৭৭ সালে জাতীয় পুরুস্কার লাভ করেন কচি-কাঁচার মেলা থেকে অংশ নিয়ে। এই সময় সংগঠনের সভাপতি ছিলেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, মফস্বল সাংবাদিক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি চারন সাংবাদিক সফিউদ্দিন আহমেদ। মুলত তিনি সাংবাদিকতায় সেখান থেকেই অনুপ্রেরণা পান। কচি-কাঁচার মেলা করার সময় জাতীয় পর্যায় রোকনুজ্জামান দাদা ভাই, কবি বেগম সুফিয়া কামাল, শাহাদাত চৌধুরির মত গুনীলোকের সান্নিধ্য লাভ করেন ছাত্র জীবন থেকেই। একদিন তারাই তার আদর্শ হয়ে হৃদয়ে অবস্থান নেন। জাপান প্রবাসী সাংবাদিক মনজুরুল হক জাপানে তার আদর্শ বলে তিনি জানান।

নিবন্ধন লাভের অনুভূতি জানিয়ে তিনি বলেন সৃষ্টিকর্তার পর পাঠক সমাজ, সাপ্তাহিক পরিবারবর্গ, জাপান প্রবাসী সকলের অনুপ্রেরণা এবং সহযোগিয়া এই অর্জন সম্ভব হয়েছে। এ জন্য তিনি সকলের নিকট কৃতজ্ঞ। তিনি সকল প্রবাসীর নিকট সহযোগিতা এবং দোয়া কামনা করেন।

জাপানে বেড়ে ওঠা শিশু-কিশোরদের বাংলা সাংস্কৃতির প্রতি আগ্রহ এবং উদ্বুদ্ধ করার জন্য “প্রবাস প্রজন্ম, জাপান” নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। সংগঠনটি বাংলাদেশ থেকে গুনীজনদের আমন্ত্রন জানিয়ে শিশু-কিশোরদের অনুপ্রেরণা দেওয়ার জন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। ডঃ জাফর ইকবাল, ডঃ ইয়াসমিন হক, ফরিদুর রেজা সাগর, গোলাম মোর্তোজা, রেজোয়ানা চৌধুরি বন্যা এ পর্যন্ত প্রবাস-প্রজম্ন, জাপান থেকে সম্মাননা পেয়েছেন। জনাব মুনশী আজাদ সংগঠনটির উপদেষ্টা।

[ad#co-1]

3 Responses

Write a Comment»
  1. অনেক অনেক অভিনন্দন মনি ভাই…

  2. Boss Dhonnyobad /apnar obodan o kom noy / kritoggyo chitte ta soron korchi

  3. onek onek shuveccha uncle.