মাওয়ায় সরকারের উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন দল॥রানিং চ্যানেল নিয়েও শঙ্কা

আসন্ন কোরবানীর ঈদে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে দক্ষিন বঙ্গের ঘরমুখো যাত্রীদের নিরাপদে বাড়ি পৌঁছাতে নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব আ. মান্নান হাওলাদারের নেতৃত্বে সরকারের একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন দল শনিবার মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ চ্যানেলের নাব্যতা সংকট পরিদর্শনসহ ক্রস চ্যানেলের ড্রেজিং কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।
এসময় তার সঙ্গে ছিলেন বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কামাল , বিআইডব্লিউটি এর সদস্য প্রকৌশল ফিরোজ আহমেদ, প্রধান প্রকৌশলী (ড্রেজিং) আব্দুল মতিন, নির্বাহী প্রকৌশলী (ড্রেজিং) মাশুকুর আলম প্রমূখ।

প্রতিনিধি দলটি রানিং চ্যানেল পরিদর্শন শেষে চ্যানেলটির কবুতরখোলা-কাওলিয়ারচর অংশটি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। এ অংশে বিশাল ডুবোচরের সৃষ্টি হওয়ায় এ চ্যানেল দিয়ে ঈদে ফেরি চালানো সম্ভব নয় বলে তারা মাওয়া থেকে অদূরে নীচের দিকে লৌহজংয়ের কাছাকাছি একটি চ্যানের বের করার জন্য সার্ভে কাজ চালানোর পরামর্শ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে। এসময় এ নৌরুট রানিং চ্যানেলটি যাতে বন্ধ হয়ে না যায় সেজন্য এ চ্যানেলে ড্রেজিং ব্যবস্থা আরো গতিশীল করার তাগিত দেন। নতুন চ্যানেল বের না হওয়া পর্যন্ত এ চ্যানেল দিয়েই ফেরি চলাচল সচল রাখা হবে বলে প্রতিনিধি দলটি জানান।

তাছাড়া সার্ভে করে নতুন চ্যানেল বের করা হলে ওই চ্যানেলে কিছুটা ড্রেজিংয়ের প্রয়োজন হলেও ড্রেজিং করে চ্যানেলটি কোরবানির ঈদের পূর্বেই দক্ষিন বঙ্গের যাত্রী সাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হবে। এছাড়াও মাওয়া-হাজর-কাওড়াকান্দি ক্রস চ্যানেলে ড্রেজিং কার্যক্রম গতিশীল করে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের পূর্বে চ্যানেলটি চালু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সরকারের এই উচ্চ পদস্থ দলটির কর্মকর্তা বৃন্দ। চ্যানেল পরি দর্শনে মাওয়ায় এ প্রতিনিধি দলটিকে সহযোগিতা করেন বিআইডব্লিউটিসি মাওয়া অফিসের এজিএম মো.আশিকুজ্জামান, মেরিন অফিসার আব্দুস সোবহান, বিআইডব্লিউটিএ উপ পরিচালক আব্দুল সালাম , উপসহকারী প্রকৌশলী কামাল পাশা প্রমূখ।

[ad#co-1]