গজারিয়ায় সরকারি সম্পত্তি দখল

গজারিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতারা সরকারি সম্পত্তি দখল করার অভিযোগ উঠেছে। তারা সরকারি পুকুর মাটি দিয়ে ভরাট করে দোকানঘর নির্মাণ ও গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ের নামে সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছে। দখলকৃত ওই জমির মূল্য প্রায় ৫-৬ কোটি টাকা।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ভবেরচর বাজার সংলগ্ন পুকুরটি অবৈধভাবে দখল করে উপজেলা আওয়ামী লীগের অফিসের সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দোকানঘর তুলেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। ভবেরচর ইউনিয়নের শ্রীনগর মৌজার ১নং খতিয়াভুক্ত আরএস দাগ নং-১০৭৬ এর ৬৭ শতাংশ জায়গাটি আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠনের সাইনবোর্ড স্থাপন ও দোকানঘর নির্মাণ করেছে আওয়ামী লীগ নেতারা। সরকারি জায়গায় মাটি ভরাট করে দখল করার ঘটনায় ভবেরচর ইউনিয়ন ভূমি অফিস দুটি অভিযোগ দায়ের করে এসিল্যান্ড অফিসে। ভারপ্রাপ্ত এসিল্যান্ড ইউএনও সরকারি জায়গায় মাটি ভরাট করায় দখলদারদের মাটি সরিয়ে নেয়ার নোটিশ দেয়। নোটিশ দেয়ার ৭ দিন পরও মাটি সরিয়ে নেয়নি দখলদাররা। আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের টাঙ্গানো সাইনবোর্ডটি সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়নি কর্তৃপক্ষ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, তৎকালীন বিএনপি ক্ষমতা থাকার সময়ে বিএনপি অফিস স্থাপনের জন্য জায়গাটি লিজের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছিল। মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর উপজেলা আওয়ামী লীগের অফিস স্থাপনের জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করে। দুটি আবেদনই অনুমোদন করেননি কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে ভবেরচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান মৃধা বলেন, আওয়ামী লীগের কে বা কারা জায়গা দখল করে সাইনবোর্ড স্থাপন করেছে তা আমার জানা নেই। অবৈধ দখলের কারণে সরকার ও দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কামরুল ইসলাম ফিরোজ বলেন, ওই জায়গায় আওয়ামী লীগের অফিস নির্মাণ করার জন্য আবেদন করা হয়েছে। অনুমতি পেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের অফিস নির্মাণ করা হবে। তবে দখল করার বিষয়টি তার জানা নেই বলে তিনি জানান। এ ব্যাপারে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফিরোজ আহাম্মেদ বলেন, গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ওই জায়গা থেকে ৭ দিনের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা ও সাইনবোর্ড খুলে নেয়ার নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। অবৈধ স্থাপনা ও সাইনবোর্ড না সরানো হলে দুই একদিনের মধ্যেই তিনি ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।

[ad#co-1]