ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক সংস্কার কাজ না হলে

৩ অক্টোবর থেকে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট
যান চলাচলে প্রায় অযোগ্য ও চরম ভোগান্তির সড়ক হিসেবে পরিচিত ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ-নারায়ণগঞ্জ সড়কটির সংস্কার কাজ চলতি সপ্তাহের মধ্যে শেষ না হলে আগামী ৩ অক্টোবর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছে পরিবহন মালিকরা। গতকাল শনিবার সড়কটির মেরামত ও সংস্কার দাবিতে শহরের চাষাড়াস্থ নারায়ণগঞ্জ ট্রাক মালিক সমিতির কার্যালয়ে এক যৌথ সভায় এ ঘোষণা দেয়া হয়। এতে উপস্থিত পরিবহন মালিকরা সড়কটির সংস্কার না হওয়ায় সরকার ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কঠোর ভাষায় সমালোচনা করেন। তারা অভিযোগ করেন, সড়কটির বেহাল দশার কারণে যান চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। প্রতিদিন পরিবহন নষ্ট হচ্ছে। এতে করে পরিবহন মালিকরা যেমন আর্থিক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছে তেমনি সড়কের ভাঙাচোরার কারণে যানজট, পরিবহন পথিমধ্যে বিকল হওয়া, দুর্ঘটনাসহ নানা কারণে চলাচলরত যাত্রীদেরও পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ। মুন্সীগঞ্জ জেলার মানুষের রাজধানীতে যাওয়ার অন্যতম এ সড়কটি এমন বেহাল দশার কারণে নারায়ণগঞ্জবাসীর পাশাপাশি মুন্সীগঞ্জের জনগণকেও দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। দেশের অন্যতম শিল্পাঞ্চল ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উৎপাদিন পণ্য পরিবহনে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা।

সভায় চলতি সপ্তাহের মধ্যে অবস্থা উত্তরণ ও সড়কের মেরামত দাবি করা হয়। নতুবা ৩ অক্টোবর থেকে লাগাতার ধর্মঘট আহ্বান এবং তার আগে ২৮ সেপ্টেম্বর প্রেসব্রিফিং করে পরবর্তী আন্দোলনের ঘোষণা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ জেলা বাস-মিনিবাস (কোম্পানি)-ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান মালিক শ্রমিক ঐক্য জোটের আহ্বায়ক মোক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি সালাউদ্দিন, ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি আতিক উল্লাহ মিন্টু, আনন্দ পরিবহনের এমডি আলী আহাম্মদ, জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক কমিটির সভাপতি সামসুজ্জামান, বেকার পরিবহনের সভাপতি সামসুজ্জামান ভাসানী, উৎসব পরিবহনের হাজি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ। এ ছাড়া বন্ধন, সেতু, একতা পরিবহনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

[ad#co-1]