মাওয়ায় সুনির্দিষ্ট সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করে চাঁদা চিরতরে বন্ধ করা হবে

শাহজাহান খান
নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি মাওয়াঘাটে চাঁদাবাজি প্রসঙ্গে বলেছেন, বর্তমান সরকার চাঁদাবাজি বন্ধ করতে বদ্ধপরিকর। তার উদাহরণ পার্কিং ইয়ার্ডের ইজারা প্রথা বন্ধ করা হয়েছে। সরকার চিন্তা ভাবনা করছে মাওয়ায় সুনিদিষ্ট সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করে চাঁদা চিরতরে বন্ধ করার। এতে যেসব গাড়ি পার্কিং ইয়ার্ডে যাচ্ছে না। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকবে। তাদের কাছ থেকে ইজারাদারের চাঁদাবাজি করা সম্ভব হবে না।

তিনি মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌ রুটে নব্যসঙ্কটের কারণে ফেরি চলাচলের বিঘœতা প্রসঙ্গে বলেন, প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে আমরা হেরে গেছি। পদ্মায় প্রচন্ড স্রোতের সাথে পলি থাকায়, ড্রেজিংকৃত চ্যানেলগুলোতে বালিপড়ে ভরে যাওয়ায় শর্ট চ্যানেলগুলো চালু রাখা যায়নি। ঈদের পরে পদ্মার পানির স্থিতিশীলতা ফিরে আসলে আমরা পুনরায় ড্রেজিং করে ক্রস চ্যানেলটি চালুর ব্যবস্থা করা হবে। বর্তমানের পদ্মায় যে পানি রয়েছে। তাতে ঈদে ফেরি পারাপারে কোন রকম সমস্যা হওয়ার কথা নেই। প্রকৃতির চ্যানেল দিয়েই ফেরি চলাচল করবে।

তিনি মঙ্গলবার বিকালে (সাড়ে ৪টায়) দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া ফেরিঘাট পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন।

এই সময় তার সাথে ছিলেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক মিয়া, মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো.আজিজুল আলম, বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী (ড্রেজিং) মাসুকদুর রহমান, বিআইডব্লিউটিসি’র জিএম (বাণিজ্য) সাহেব উদ্দিন আহম্মেদ ও পুলিশ সুপার মো.শফিকুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিসি’র ম্যানেজার সিরাজুল ইসলাম ও বন্দর কর্মকর্তা বাবু লাল বৈদ্য প্রমুখ।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০
০৭.০৯.১০

[ad#co-1]