লৌহজংয়ে আবার ভয়াবহ নদী ভাঙ্গন॥আতঙ্ক

লৌহজংয়ে আবার ভয়াবহ নদী ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। শনিবার দুপুরে গাওদুয়িার শামুর বাড়ি এলাকায় বিস্তীর্ণ এলাকা পদ্মায় বিলীন হয়ে যায়। ভাঙ্গন কবলিত মানুষের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো ঈদ সামগ্রী হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি বিতরণকালে হঠাৎ বিশাল এলাকা পদ্মায় ডুবে যায়। এই সময় এটিন বাংলা ক্যামেরা ম্যান শহীদ আহম্মেদ সানিও পদ্মায় পড়ে যায়। পরে সহকর্মী ও এলাকাবসী তাকে উদ্ধার করে। পদ্মার এই ভাঙ্গনে স্থানীয় সংসদ সদস্য এমিলি এমপির বাড়িসহ এই অঞ্চলের বিস্তীণ জনপদ হুমকীর মুখে পড়েছে। এলাকায় এখন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত জেলা প্রশাসক মো.আজিজুল আলম জানান, ভাঙ্গন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায়ে জানানো হয়েছে। হুইপ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি এমপি জানান, তাৎক্ষনিক বালুভর্তি বস্তা ফেলা হচ্ছে এলাকাবাসীর উদ্যোগে।

পদ্মার অব্যাহত ভাঙ্গনে অন্তত ৩০টি গ্রাম এখন নিশ্চিহ্ন। লৌহজং উপজেলার মানচিত্র থেকে ২টি ইউনিয়ন বিলীন হয়ে গেছে। এই উপজেলার ইউনিয়ন সংখ্যা এখন ১২টির স্থলে ১০টি। ধাইদা সম্পূর্ণ এবং টেউটিয়া ও লৌহজংয়ের অধিকাংশ এলাকা বিলীন হয়ে যায়। পরে টেউটিয়া এবং লৌহজং ইউনিয়নের বাকী অংশ মিলিয়ে লৌহজং-টিউটিয়া নামের নতুন ইউনিয়ন ঘোষনা করা হয়। নদী ভাঙ্গণে এই উপজেলার অর্ধলক্ষাধিক মানুষ ভূমিহীন হয়। এখনও বহু পরিবার রাস্তার পাশে ছাপরা করে বসবাস করছে। এখন সেই আতঙ্ক তারিয়ে বেড়াচ্ছে এই এলাকার মানুষকে। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে লৌহজং উপজেলার কলামা, ডহরী শামুরবাড়ি এবং কুমারভোগ এলাকা এখন হুমকীর মুখে রয়েছে। ভাঙ্গনরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ড চেষ্টা চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছে। শামুর বাড়ির ইউসুফ মিয়া জানান, তীরে এখন পানি অনেক গভীর বিশাল, নৌকার ল¹ীও ঠাই পায় না। নিচ থেকে ঘুর্নির মাধ্যমে মাটি সরে গিয়ে বিশাল এলাকা গাছপালা বসতীসহ বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এই ভাঙ্গনের বিভিষিকা প্রত্যক্ষ করতে শামুর বাড়িতে এখন মানুষের ভির।

মোহাম্মদ সেলিম, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি। ০১৯১১১৪২৬৭০

[ad#co-1]