পদ্মার থাবা

বর্ষা এলেই নদী এলাকায় শোনা যায় ভাঙনের শব্দ। সেই নদীভাঙনের শব্দ অস্থির করে তোলে নদীপারের মানুষদের। ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে কেউ কেউ নিজ উদ্যোগে তৈরি করে বাঁশের বাঁধ। তীব্র বিরোধিতা করে নদীর স্রোত। ছবিটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে তোলা।

নদীভাঙনে পদ্মার বুকে এখন বিলীন হয়েছে মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানার ভাগ্যকুল, মান্ডা, কামারগাঁও, বার্গা এলাকাসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম। এ-বাড়ি থেকে ও-বাড়ির দূরত্ব এখন মাঝের একটি নদী। তাই বাধ্য হয়েই বুকসমান পানি পার হয়ে চলাফেরা করছে এই গ্রামের মানুষ।

পদ্মা ভেঙে নিয়ে গেছে বসতবাড়ির উঠোন। কেউ কেউ ঘরের দুয়ারে দাঁড়িয়ে ওই দূরে কান পেতে শোনে ভাঙনের শব্দ। কেউবা প্রস্তুতি নেয় নিরাপদ আশ্রয়ে ফিরে যাওয়ার। ছবিটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে তোলা।

পদ্মা ভেঙে নিয়ে গেছে তাঁর শেষ আশ্রয়স্থল। সম্বল বলতে শুধু এক বোঝা পাটকাঠি। ঘর হারিয়ে এই পাটকাঠির বোঝা মাথায় নিয়েই তিনি ছুটছেন হয়তো যেখানে ভাঙনের শব্দ নেই, সেখানে। ছবিটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে তোলা।

নদীভাঙনে বিলীন হয়েছে অনেক কিছুই। তবুও রাক্ষুসে নদীর হাত থেকে বেঁচে যাওয়া বাপ-দাদার শেষ ভিটেটুকু যদি আগলে রাখতে পারে, এই আশায় কেউ কেউ চালিয়ে যান নিরন্তর প্রচেষ্টা। ছবিটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে তোলা।

ধেয়ে আসছে পদ্মার স্রোত, থেমে নেই ভাঙন, থেমে নেই মানুষের শেষ স্বপ্নটুকু দেখার পালা। ছবিটি সম্প্রতি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থেকে তোলা।

ছবি: সাজিদ হোসেন, প্রথম আলো

[ad#co-1]

One Response

Write a Comment»
  1. May allah help us and also give hidayah to our government who are responsible to solve this problem.