মাওয়ায় সরকারি নৌযানে ফ্লো মিটার ছাড়াই জ্বালানি সরবরাহ করা হচ্ছে

মাওয়া ফেরিঘাটের সরকারি নৌযানগুলোতে চেক ফ্লো-মিটার ব্যবহার না করেই জ্বালানি সরবরাহ করা হচ্ছে। জানা যায়, ১৯৮৯ সাল থেকে মাওয়া ফেরিঘাটে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্পোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) নৌযানে জ্বালানি তেল সরবরাহ করা হচ্ছে মেঘনা পেট্রোলিয়ামের মাধ্যমে। এ বছর কর্পোরেশনের দরপত্রের মাধ্যমে একটি ব্যক্তি মালিকানাধীন কোম্পানিকে পরিবহন খরচ ছাড়াই নৌযানে আগামী এক বছরের জন্য জ্বালানি সরবরাহের কাজ দেয়া হয়।

বিআইডব্লিউটিসি ও কোম্পানিটির দ্বিপাক্ষিক চুক্তিপত্রে জ্বালানি তেল সরবরাহে ফ্লো-মিটার ব্যবহারের শর্ত থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। বিআইডব্লিউটিসিও অলিখিত সমঝোতার কারণে কাউন্টার চেক ফ্লো-মিটার ব্যবহারের মাধ্যমে ন্যায্য পরিমাণ তেল বুঝে নেয়ার ব্যবস্থা করছে না। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মিটার ব্যবহার না করায় বিআইডব্লিউটিসির এক বছরে কয়েক লাখ টাকা লোকসান হতে পারে।

বিআইডব্লিউটিসি’র এজিএম ইঞ্জিনিয়ার মোতাহার হোসেন এ অভিযোগ স্বীকার করে বলেন, ফ্লো-মিটার দামি হওয়ায় কোম্পানিটির তা কিনতে একটু সময় লাগছে। তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছে শীঘ্রই মিটারের ব্যবস্থা করবে। আর জ্বালানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান যেহেতু আপাতত মিটার ব্যবহার করছে না তাই কাউন্টার চেক ফ্লো-মিটার ব্যবহারেরও প্রশ্ন ওঠে না।

[ad#co-1]