শ্রীনগরে বাঁশ দিয়ে বসতবাড়ি রক্ষার প্রচেষ্টা কোনো কাজে লাগছে না

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে:শ্রীনগরের ভাগ্যকুল ও বাঘরা ইউনিয়নে পদ্মার ভাঙ্গনে গত ১০ দিনে ৩০টি বসতবাড়ি, ভাগ্যকুল বাজারের ১৪টি দোকানঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাগ্যকুল-কামারগাঁও সড়কের পশ্চিম দিকের অংশ ভেঙ্গে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে একমাস ধরে ভাগ্যকুলে পদ্মায় ভাঙ্গন দেখা দিলেও বর্তমানে তা তীব্র হয়ে উঠেছে। ফলে এখন ভাঙ্গনেরমুখে রয়েছে বাজার ও স্কুলসহ অন্যসব সরকারি স্থাপনা।

এদিকে ভাঙ্গন ঠেকাতে সরকার এখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। বাধ্য হয়ে জনগণ নিজ উদ্যোগে বাঁশের বেড়া দিয়ে বসতবাড়ি রক্ষার চেষ্টা করলেও এ প্রচেষ্টা কোনো কাজে লাগছে না। জেলা ও উপজেলা সূত্র জানায়, বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। তবে এখনো বরাদ্দ পাওয়া যায়নি।

পাউবো সূত্র জানায়, ভাঙ্গন প্রতিরোধে ১ হাজার ৬৫০ মিটারের মধ্যে বালুর বস্তা ফেলা হবে। এ জন্য ১০ কোটি ৮৭ লাখ টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। তা অনুমোদিত হলেই কাজ শুরু করা হবে।

[ad#co-1]