হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলায় রিমান্ড শেষে জেল হাজতে সাঈদী

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে হুমায়ুন আজাদ হত্যা চেষ্টা মামলায় ২ দফায় ৫ দিন রিমান্ড শেষে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। সোমবার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির পুলিশ ইন্সপেক্টর মোস্তাফিজুর রহমান মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে শুনানি শেষে ম্যাজিস্ট্রেট এসকেএম তোফায়েল আহমদ ২৯ জুলাই রিমান্ড শুনানির জন্য ধার্য করেন। একই সাথে জেল হাজতে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে সুচিকিংসা দেয়ার জন্য জেল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আইনজীবীরা রিমান্ড শুনানি মুলতবি চেয়ে ২৯ জুলাই রিমাণ্ড শুনানির জন্য আবেদন করেন। তারা আদালতকে বলেন, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী লাগাতার ২৯ দিন রিমান্ডে থেকে গুরুতর অসুস্থ এবং শারীরিকভাবে খুব দুর্বল। তাই তাকে জেল হাজতে পাঠিয়ে ২৯ জুলাই রিমান্ড শুনানির জন্য ধার্য করা হোক। আদালত এ আবেদন না মঞ্জুর করলে উভয় পক্ষের আইনজীবীরা শুনানিতে অংশ নেন।

এসময় আদালতের অনুমতি নিয়ে মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী আদালতকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মাননীয় আদালত আল্লাহর পরে আপনার স্থান। আমাকে সারা দেশের জনগণ চিনে ও জানে। আমার অনেক ভক্তও আছে। আগামীকাল পবিত্র শবে বরাত। প্রতি বছর আমি শবে বরাতে ৫টি রোজা রাখি এবং এবাদত বন্দেগী করি। রিমান্ড শুনানি মুলতবি রেখে আমাকে জেল হাজতে পাঠিয়ে রোজা রাখা এবং এবাদত বন্দেগী করার সুযোগ দিন। এতে আল্লাহ সন্তুষ্ট হবেন। যারা ন্যায় বিচার করে আল্লাহ তাদের উপর সন্তুষ্ট হন। আপনি আমার এ অনুরোধ রক্ষা করুন।

মাওলানা সাঈদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে রিমান্ড মুলতবি রেখে তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। একই সাথে জেল হাজতে তাকে সুচিকিৎসার ব্যবস্থাসহ রোজা রাখা এবং এবাদত বন্দেগী করার সুযোগ দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত।

[ad#co-1]