সৃষ্টিতে অমর আবু তাহের

‘জ্বালাইয়া প্রেমের বাতি কোথায় তুমি থাকো রে’, ‘তুমি কেমন গাড়িয়াল শুধু টানো পরের মাল’, ‘আমার জন্ম তোমার জন্য’ প্রভৃতি জনপ্রিয় গানের সুরস্রষ্টা প্রয়াত আবু তাহের। গত ১৪ জুলাই ছিল তাঁর ১৩তম মৃত্যুবার্ষিকী।
গুণী এ সংগীত পরিচালকের জন্ম মুন্সীগঞ্জ জেলার এক সংগীত পরিবারে। তাঁর বাবা ধীর আলী মিয়া ছিলেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বিখ্যাত বংশীবাদক। সুরস্রষ্টা ও সংগীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী সম্পর্কে তাঁর চাচা। চাচার হাত ধরেই আবু তাহের সংগীতাঙ্গনে আসেন। প্রথমে বেহালা ও ভাইব্রোফোন বাজাতেন তাহের। পরিচালকদের অনুরোধেই চলচ্চিত্রে সংগীত পরিচালনায় নেমে পড়েন। অবশ্য এতে চাচা আলাউদ্দিন আলীর অনুপ্রেরণাও ছিল।

এক দশকেই ‘বেদের মেয়ে জোছনা’, ‘গাড়িয়াল ভাই’, ‘রাখাল রাজা’, ‘শঙ্খ মালা’, ‘পাগল মন’, ‘আবদুল্লাহ’, ‘জবাবদিহি’, ‘বুক ভরা ভালোবাসা’, ‘এ বাঁধন যাবে না ছিঁড়ে’, ‘আখেরী মোকাবেলা’, ‘দুর্জয়’, ‘ডন’-এর মতো দর্শকনন্দিত ছবির সংগীত পরিচালনা করে শ্রোতাদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন তিনি। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারের অনেক জনপ্রিয় আধুনিক এবং দেশাত্দবোধক গানের সুরকারও আবু তাহের। আবু তাহেরের সুরারোপিত গান প্রথমে বাংলাদেশ বেতারে পরিবেশন করেন নিয়াজ মো. চৌধুরী। আবু তাহেরের অনুজ আলী আকরাম শুভ বর্তমান চলচ্চিত্রে ব্যস্ত সুরকার।

অত্যন্ত স্বল্প সময়ে প্রায় ২০০-এর মতো ছবির সংগীত পরিচালনা করছিলেন এ গুণী সংগীত পরিচালক। ভারতের বিখ্যাত কম্পানি ‘হিজ মাস্টারস ভয়েস (ঐগঠ)’ আবু তাহেরকে ‘ডাবল প্লাটিনাম ডিস্ক’ পুরস্কার দিয়েছিল। দুই ছেলে অঙ্কুর ও অন্তর। গুণী এ সংগীতব্যক্তিত্ব ১৯৯৭ সালের ১৪ জুলাই হার্টস্ট্রোকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে মারা যান। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৬ বছর। তাহেরের স্ত্রী মিনা তাহের আক্ষেপ করে বলেন, ‘সরকার তাহেরের সৃষ্টির মূল্যায়ন তাঁর জীবদ্দশায় না করুক, মৃত্যুর পর তো রয়্যালটি প্রদান করতে পারে।’

[ad#co-1]