শ্রীনগরে পদ্মার ভাঙনে ৪০ ঘর-বাড়ি ও দোকান বিলীন

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে:শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল এলাকায় পদ্মা নদীর ভাঙনে বসতবাড়ি হারানো অনেকেরই এখন যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। সরকারি কোনো সাহায্যও পৌঁছেনি সেখানে। বর্তমানে একাধিক পরিবার খোলা আকাশের নিচে জীবন-যাপন করছে। এ কারণে নদী সিকস্তিদের মধ্যে সরকারি খাস জায়গা বিতরণের দাবি ওঠেছে।

জানা গেছে, গত ভাঙনে সরকারি টিনের মজুদ এখনো গোডাউনে রয়েছে। সে সময় ভাঙন কবলিত নয় এমন লোকজনকে টিন দেয়ার উদ্যোগ নিলে স্থানীয়দের আপত্তিতে টিন বিতরণ করা হয়নি। গতকাল রোববার সরেজমিনে জানা গেছে, পদ্মার ভাঙনে গত ৪ দিনে ৪০টি ঘর-বাড়ি ও দোকানপাট নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্তরা এখন বসতি বাড়ি-ঘর হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। গত শুক্রবার মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন। স্থানীয়রা জানান, যে কোনো সময় ভাগ্যকুল বাজার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছে ব্যবসায়ীরা। বর্তমানে উপজেলার ভাগ্যকুল ও বাঘরা বাজারসহ আশপাশ এলাকায় ২টি ইউনিয়নে প্রতিনিয়ত ভাঙন তাণ্ডব চলছে। এছাড়া লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ি উপজেলার কিছু অংশে ভাঙন দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

[ad#co-1]