টঙ্গীবাড়িতে বসতবাড়ি ছাড়া এক পরিবার

টঙ্গীবাড়ির কথিত এক দখলবাজের অত্যাচারে নব্বই বছরের বৃদ্ধা ছেলে-মেয়ে-পুত্রবধূ ও নাতি-নাতনী নিয়ে এখন স্বামীর ভিটাছাড়া। গত সোমবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ শহরে রিপোর্টাস ইউনিটির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ তুলে ধরেন টঙ্গীবাড়ি উপজেলার রব নগরকান্দি গ্রামের হালিমুন নেছা (৯০)। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ছোট আবদুর রশিদ।

তিনি বলেন, আবদুস ছালাম নিরু ভূঁইয়া আমাদের বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে। তার বাহিনীর অত্যাচারে আমরা এখন বসতবাড়িছাড়া। ইতিমধ্যে আমাদের বাড়ির উত্তরাংশের জায়গা দখল করে রাস্তা বানিয়েছে। আমার ছেলেদের ঢাকার বিভিন্ন থানায় তার পোষা লোকজন দিয়ে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করছে। মেজো ছেলে আবদুল মান্নান (৫০) মামলার শোক সহ্য করতে না পেরে হার্টফেল করে প্রায় দশ মাস আগে মারা যায়। এদিকে সে আমার মৃত বড় ছেলের কবরের জায়গায় দোকান তুলে দখলের পাঁয়তারা করছে। সপ্তাহ খানের আগে নিরু ভূঁইয়ার লোকজন আমার ছেলের কবর তুলে দোকানঘর তুলতে যায়। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বাধা দেয়। নিরু ভূঁইয়া ক্ষমতাসীন দলের ছত্রছায়ায় থেকে এলাকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। নিরু ভূঁইয়া গংয়ের বিরুদ্ধে টঙ্গীবাড়ি থানায় আমার ছেলে আবদুর রশিদ সাধারণ ডায়েরি করলে সে আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। সংবাদ সম্মেলনে হালিমুন নেছা নিরু ভূঁইয়ার অত্যাচারের প্রতিকার চায় সরকারের কাছে।

[ad#co-1]