মুন্সীগঞ্জে পৃথক হামলা ও সংঘর্ষে আহত ৭০

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার মনারকান্দি, সদরের চরাঞ্চলের ফুলতলা ও সরস্বতী গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলা ও সংঘর্ষের পৃথক ৩টি ঘটনায় কমপক্ষে ৭০ জন আহত হয়েছে। এ ছাড়া হামলা চালিয়ে খেলার মাঠের পুরস্কার বিতরণের মঞ্চ, ট্রফি ও অন্তত ১০টি বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। এদিকে বখাটেদের উৎপাত সইতে না পেরে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে এক গৃহবধূ। গতকাল শনিবার সকালে ও শুক্রবার সন্ধ্যায় ও রাতে এসব ঘটেছে। সদরের সরস্বতী গ্রামের ভুক্তভোগীরা ২ শতাধিক লোককে আসামি করে সদর থানায় মামলা করেছে। বাকি দুটি ঘটনার মধ্যে মনারকান্দি গ্রামের মাঠে সংঘর্ষ ও বাড়িঘরে হামলার ঘটনায় বক্তারকান্দি গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে গজারিয়া থানায় মামলা এবং মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় বখাটেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

জেলা সদরের চরাঞ্চলের ফুলতলা গ্রামে এক গৃহবধূকে উত্ত্যক্ত করলে তাতে বাধা দেয়ায় ১০ জনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করেছে বখাটেরা। গতকাল শনিবার সকাল ৮টায় একই গ্রামের হামিদ খানের বখাটে ছেলে শ্যামার নেতৃত্বে ১০-১৫ জন সন্ত্রাসী ওই গৃহবধূর ১০ জন আত্মীয়কে ধারালো অস্ত্রে কুপিয়ে ও লাঠিসোঁটায় এলোপাতাড়ি পিটিয়ে জখম করে। আহতদের মধ্যে আলো, তার স্ত্রী হামিদা বেগম, ছেলে আবু হানিফ ওরফে অপু মীরধা, শ্বশুর রুহুল আমিন ও ইব্রাহিমকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গৃহবধূ নূরী বেগমকে বখাটে শ্যামা ও তার সহযোগীরা দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। বাধ্য হয়ে শুক্রবার নূরী ফুলতলা স্বামীর বাড়ি ছেড়ে নারায়ণগঞ্জ চলে যেতে বাধ্য হন।