আমি যুদ্ধ করেছি প্রাণের টানে: চাষী নজরুল ইসলাম

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম মুক্তিয্দ্ধু নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন তিনি, যিনি নিজেও অংশ নিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধে। যুদ্ধ, যুদ্ধ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ ও অন্যান্য কাজ নিয়ে আজকের দূর আলাপনে কথা বলেছেন চাষী নজরুল ইসলাম।

কিভাবে স্বাধীনতার যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন?
আমি যুদ্ধ করেছি প্রাণের টানে। ঐ সময় তো বসে থাকার উপায় ছিল না। তবে আমি সরাসরি বন্দুক হাতে যুদ্ধ করিনি। আমি যুদ্ধ করেছি যুদ্ধের পেছনে। সেই সময় কখন কোথায় ছিলাম তা এখন স্পষ্ট করে বলতে পারব না। আমি বেশিরভাগ সময়ে গ্রামের দিকেই ছিলাম। মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র সরবরাহ করার কাজটিই সবচেয়ে বেশী করেছি আমি। যা ছিল সত্যিই ভয়ঙ্কর একটি কাজ। এছাড়া অপারেশনের পরিকল্পনা করতেও আমি মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্য করতাম। সেই নয়টি মাস যে কিভাবে গেছে কাউকে বলে বোঝানো যাবেনা। আমরা তখন এই দেশের মুক্তি ছাড়া আর কিছুই ভাবতে পারতাম না।

যুদ্ধের অভিজ্ঞতা আপনার চলচ্চিত্রে কতোটা উঠে এসেছে?
একশো ভাগ। আমি আমার অভিজ্ঞতার পুরোটাই দিতে চেয়েছি আমার চলচ্চিত্রে। আমি যখন ওরা এগারো জন চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করলাম তখন আমরা সত্যিকারের গ্রেনেড রাইফেল ব্যবহার করেছি। আমার সঙ্গে ছিল খসরু। ওরা এগারো জনের কাজের সময়ের প্রতিটি মানুষ তাদের অভিজ্ঞতা ঢেলে সাজিয়েছে চলচ্চিত্রটি। তবে আমি খসরু’র কাছে অনেক কৃতজ্ঞ। সে না থাকলে এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করা হয়তো হতো না। আমরা সেই সময়ের অভিজ্ঞতার আলোকে নির্মাণের কারণে ছবিগুলো এতোটা ভালো হয়েছিল।

যুদ্ধের সময়কার কোন দুঃখের স্মৃতি কি আপনার মনে পড়ে?
যুদ্ধের সময় সব স্মৃতিই তো দুঃখের। সুখের স্মৃতি বিষয়টাতো বিরল একটি বিষয়, অন্তত: যুদ্ধেক্ষেত্রে। তবে কোন অপারেশনে সফল হলে তখন নিশ্চই ভালো লাগত। মনে প্রচন্ড আনন্দ অনুভব করতাম তখন। কিন্তু কোন অপারেশনে কোন সহযোদ্ধা যখন মারা যেত সেই স্মৃতিটা হত সবচে বেদনার। তারপরও সেই কষ্ট সহ্য করে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হয়েছে আমাদের। আজও তাদের কথা মনে হলে কষ্টে অশ্রুসিক্ত হয়ে যায় চোখ। তাদের সবার নাম হয়তো এখন বলতে পারব না। তবে প্রতিবারের মতো এবারো সেই শহীদদের প্রতি জানাই আমার সালাম।

আপনার নতুন দেবদাস নির্মাণের কতখানি হয়েছে?
নতুন দেবদাসের কাজ প্রায় আশি ভাগ শেষ হয়েছে। এখন বাকি কাজটুকু শেষ করে ছবিটি মুক্তি দিতে খুব বেশি সময় লাগবে না। এর আগেও আমি একবার দেবদাস ছবি নির্মাণ করেছিলাম। তখন ছবিটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। আশা করছি এবারও এর ব্যতিক্রম হবে না।

বিস্তারিত