মুন্সীগঞ্জে ৮ লাখ টন আলুসংরক্ষণের স্থান নেই

দেশের বৃহত্তম আলু উৎপাদনকারী অঞ্চল মুন্সীগঞ্জের কোল্ড স্টোরেজগুলোর সামনে এখন ট্রাক ও ট্রলারজট বিরাজ করছে। এবার মুন্সীগঞ্জে উৎপাদিত ৮ লাখ টন আলু সংরক্ষণ করতে পারবেন না কৃষক। তাই আলু সংরক্ষণে কোল্ড স্টোরেজগুলোতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন কৃষকরা। সেখানে নদীপথে নেওয়া আলুভর্তি ট্রলার ও সড়কপথে নেওয়া ট্রাকের ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। এতে জেলার বিভিন্ন কোল্ড স্টোরেজের প্রাঙ্গণ থেকে সড়কে ও নদীতে ট্রাক ও ট্রলারের জট লেগেছে। ইতিমধ্যে কোল্ড স্টোরেজগুলোতে প্রায় ৭০ শতাংশ আলু সংরক্ষণ হয়ে গেছে। বাম্পার ফলনের কারণে এখনও উৎপাদিত আলুর বিরাট অংশ সংরক্ষণের অভাবে মাঠে-ঘাটে, জমিতে কিংবা কোল্ড স্টোরেজের সামনে ট্রাকভর্তি ও ট্রলারভর্তি অবস্থায় পড়ে আছে।

এবার মুন্সীগঞ্জে ৩৬ হাজার ৬৭০ হেক্টর জমিতে প্রায় পৌনে ১২ লাখ টন আলু আবাদ হয়েছে। জেলায় সাড়ে ৪ লাখ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৭১টি কোল্ড স্টোরেজ রয়েছে। এর মধ্যে ৫৯টি চালু রয়েছে। আলুচাষিরা জানান, পাইকারের অভাব, দাম কম, হিমাগারের ভাড়া বৃদ্ধি, দালালের দৌরাত্ম্য ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। কৃষক এখন আলুর ন্যায্য দাম না পেয়ে এবং আলু বিক্রি করতে না পেরে ঝুঁকেছেন কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণে। সেখানে আলু সংরক্ষণ করতে গিয়েও দেখা মিলছে এক অন্যরকম চিত্র। বিগত বছরগুলোর থেকে এবার কোল্ড স্টোরেজের চিত্র পুরোটাই আলাদা। এবার মুন্সীগঞ্জের কোল্ড স্টোরেজের সামনে আলুবোঝাই শত শত ট্রাকের জট লেগেছে। নৌপথে লেগেছে আলুবোঝাই ট্রলারজট। শুক্রবার মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠে মুক্তারপুর এলাকার ধলেশ্বরী নদীতে কয়েকশ’ ট্রলারের এমন চিত্রই দেখা গেছে। এছাড়া ঢাকা-মুন্সীগঞ্জ সড়কে কোল্ড স্টোরেজগুলোর সামনে রয়েছে আলুভর্তি ট্রাকের সারি। মুক্তারপুর এলাকার এলাইড কোল্ড স্টোরেজ, বিক্রমপুর মাল্টিপারপাস, রিভারভিউ কোল্ড স্টোরেজ, নিপ্পন আইস অ্যান্ড কোল্ড স্টোরেজ, কদম রসুল কোল্ড স্টোরেজের সামনে গতকাল আলু ভর্তি অবস্থায় তিন শতাধিক ট্রলার অপেক্ষায় ছিল।

[ad#co-1]

Comments are closed.