মাওয়ায় চার কিমি যানজট ॥ আটকা পড়েছে সহস্রাধিক গাড়ি

ফেরি সঙ্কট ও ঘাট সমস্যার কারণে শুক্রবার মাওয়া ঘাটে বিশাল যানজটের সৃষ্টি হয়। সাধারণত ট্রাকগুলো এখানে যানজটে আটকা পড়লেও যানজটে মাওয়া ও কাওড়াকান্দি উভয় ঘাটে আটকা পড়ে বাস, পণ্যবাহী ট্রাক ও বিভিন্ন প্রকার প্রাইভেটকারসহ সহস্রাধিক যানবাহন। মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরম্নটে নাব্য সঙ্কটের কারণে যানজট সৃষ্টির কথা অস্বীকার করে বিআইডবিস্নউটিসি বলেছে শ্বরসিনা শরীফে উরসের কারণে অতিরিক্ত গাড়ির চাপেই এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আর যানজটে আটকা পড়ে চরম দুর্ভোগ ও ভোগানত্মির শিকার হয়েছেন শত শত যাত্রী।

বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে মাওয়া ১ নং ফেরি ঘাটে যশোর ফেরি থেকে একটি পণ্যবাহী ট্রাক নামার সময় এক্সেল ভেঙ্গে ফেসে গেলে এই ঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে য়ায় । এ সময় যশোর ফেরিটিও ঘাটে আটকা পড়ে । তা ছাড়া কর্ণফুলী ফেরিটিও মেরামতের জন্য রয়েছে মাওয়া ভাসমান ওয়ার্কশপে। তা ছাড়া বুধবার যমুনা ফেরির র্যামের পিন ভেঙ্গে গেলে এটিকে ডক ইয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয়। এটিকে সচল করা মাত্রই ফেরি থোবালকে মেরামতের জন্য ডকিং করা হয়। এর ১৫ দিন পূর্বে ফেরি রানীৰেতকে নারায়ণগঞ্জ ডক ইয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হলেও বিকল্প কোন ডাম্প ফেরি এ রম্নটে সংযোগ করা হয়নি। বার বার ডকিংয়ের ফলে এ নৌরম্নটে যানবাহন পারাপারে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংশিস্নষ্ট কর্তৃপৰ।

ফেরি স্বল্পতা ও ১টি ঘাট বন্ধ থাকার কারণে বৃহস্পতিবার হতেই এখানে যানজটের সৃষ্টি হয়। শুক্রবার তা তীব্র আকার ধারণ করে ৪ কিমি দূরে শ্রীনগর উপজেলার দোগাছি বাজার পর্যনত্ম ছড়িয়ে পড়ে। বিআইডবিস্নউটিসি মাওয়া অফিসের সহকারী মহাব্যবস্থাপক আশিকুজ্জামান জানান, ফেরির তেমন কোন স্বল্পতা নেই, পদ্মায় যে পরিমান পানি আছে তাতেও ফেরি চলাচলে তেমন কোন সমস্যার সৃস্টি হচ্ছে না। তিনি বলেন ওরশ মোবারকের কারণে ভক্ত আশিকানদের অতিরিক্ত গাড়ির চাপেই এ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

[ad#co-1]