কাওড়াকান্দি-মাওয়া রুটে তীব্র যানজট, সহস্রাধিক যান পারাপারের অপেক্ষায়

পদ্মা নদীতে তীব্র নাব্যতা সংকট ও ফেরি স্বল্পতায় দেশের গুরুত্বপূর্ণ কাওড়াকান্দি-মাওয়া উভয় ঘাটে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। গত ২ দিন ধরে আটকে থেকে পারাপারের অপেক্ষায় থাকা কাঁচামালবাহী ট্রাকগুলোতে পচন দেখা দিয়েছে। উভয় ঘাটের যাত্রী পরিবহনসহ প্রায় সহস্রাধিক পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় আছে।
বিআইডব্লিউটিসি সূত্র জানায়, মঙ্গলবার গভীর রাত থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ঘাট এলাকায় অচলাবস্থা প্রকট আকার ধারণ করে। ২টি ফেরি বিকল থাকায় মাত্র ৯টি ফেরি দিয়ে দীর্ঘ এ নৌরুটটি চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃৃপক্ষকে। এর মধ্যে ৬টি ফেরিই ফ্লাট ফেরি (টানা ফেরি) যা দিয়ে পাড় হতে আড়াই থেকে ৩ ঘণ্টা সময় লাগে। নাব্যতা সংকটে কাওড়াকান্দির ১ ও ৩ নং ঘাটটিও প্রায় বিকল। বার বার পন্টুনসংলগ্ন সংযোগ সড়কের মাটি কেটেও পানির স্তরের সঙ্গে মেলানো যাচ্ছে না। সঙ্গে পদ্মার কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে লৌহজং টার্নিং পর্যন্ত পানির সর্বনিম্ন স্তর বিরাজ করছে। ফেরিগুলো ধারণক্ষমতার চেয়ে অনেক কমসংখ্যক যান নিয়ে পারাপার হতেও হিমশিম খাচ্ছে। ফলে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। ঘাট এলাকায় কোনো টার্মিনাল না থাকায় গত ২ দিন ধরে ঘাট এলাকায় আটকে থেকে শ্রমিকরাও অবর্ণনীয় দুর্ভোগের স্বীকার হচ্ছে। বিআইডব্লিউটিসির ট্রান্সপোর্ট সুপারিন্টেন্ডেন্ট রুহুল আমিন বলেন, রায়পুরা ও রানীক্ষেত ফেরি ২টি মেরামতের জন্য নারায়ণগঞ্জ ও মাওয়া ডকইয়ার্ডে থাকা ও নদীর নাব্যতা সংকটে

[ad#co-1]