ভাড়া নিয়ে মুন্সীগঞ্জ প্রশাসন ও কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশন দ্বন্দ্ব

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ: আলু উত্তোলন মৌসুমকে সামনে রেখে হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণ নিয়ে মুন্সীগঞ্জ প্রশাসন ও কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশন নেতারা দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছে। এরই অংশ হিসেবে জরুরি সভায় বাজারকে অস্থিতিশীল করার জন্য কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনকে দায়ী করে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে মুন্সীগঞ্জ প্রশাসন। এদিকে এ সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করে কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা বলেছেন, তাদের এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার নেই। প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা না করেই হিমাগারের ভাড়া দ্বিগুণ নির্ধারণ করায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, আলু উত্তোলন মৌসুম শুরু হওয়ায় হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণ সংক্রান্ত বিষয়ে ১০ দিনের ব্যবধানে তিন দফা চূড়ান্ত সভা হলেও তাতে বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা অনুপস্থিত থাকায় সরকারিভাবে ভাড়া নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। এরই মধ্যে কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশন একতরফাভাবে ৮০ কেজি ওজনের প্রতি বস্তা ২৬০ টাকা হারে হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণ করে। এতে মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা এখন চরম ক্ষুব্ধ ও হতাশ হয়ে পড়ে।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. মোশারফ হোসেন বলেন, কৃষক ও জাতীয় স্বার্থে একতরফাভাবে ভাড়া নির্ধারণকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেজর (অব) মো. জসিমউদ্দিন বস্তা প্রতি ২৬০ টাকা ভাড়া নির্ধারণের কথা স্বীকার করে বলেন, সারাদেশের হিমাগারের ভাড়া নির্ধারণের বিষয়টি অ্যাসোসিয়েশনের। তাই মুন্সীগঞ্জ প্রশাসনের সঙ্গে আলাপ করার কি আছে।

[ad#co-1]