সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার

তারকা লেখকদের মিলনমেলা
বৈচিত্র্যময় নানা আয়োজনে এখন সরব সাংস্কৃতিক অঙ্গন। স্বাধীনতার মাসে জমে উঠেছে বহুমাত্রিক অনুষ্ঠানমালা। শনিবার সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নানা আয়োজনের মধ্যে ছিল সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার প্রদান, জাতীয় জাদুঘর ও পাবলিক লাইব্রেরিতে স্বল্পদের্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব এবং কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে চলছে পথনাটক উৎসব। এছাড়া ধানম-ির বেঙ্গল শিল্পালয়ে চলছে ভারতীয় শিল্পী দিপালী ভট্টাচার্যের একক চিত্রকলা প্রদর্শনী।

সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার

শনিবার দুপুর ১২টায় তেজগাঁও চ্যানেল আই ভবনের স্টুডিওতে তারকা লেখকদের এক জমজমাট মেলা বসেছিল। সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার ’১০ প্রদান উপলক্ষে নবীন-প্রবীণ লেখকদের অন্যরকম এক মিলনমেলা জমে ওঠে। ২০১০ অমর এশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত নতুন বইয়ের মধ্য থেকে নির্বাচিত সেরা লেখকদের এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এবার ‘ক’ শাখায় উপন্যাসে সময় প্রকাশন থেকে প্রকাশিত ‘হিরন্ময় দুঃখ এবং প্রতিদিন একটি পপি’ গ্রন্থের জন্য কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন, প্রবন্ধে বিদ্যাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘লালনকে কে বাঁচাবে’ গ্রন্থের জন্য মফিদুল হক, কবিতায় প্রথমা থেকে প্রকাশিত ‘পান্থশালার ঘোড়া’ গ্রন্থের জন্য কামাল চৌধুরী, শিশুসাহিত্যে ঐতিহ্য থেকে প্রকাশিত ‘ছাপাখানার ভূত’ গ্রন্থের জন্য কাইজার চৌধুরী এবং ছোটগল্পে অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘ছেলেটি যে মেয়ে, মেয়েটি তা জানতো না’ গ্রন্থের জন্য নাসরীন জাহান এ পুরস্কার গ্রহণ করেন।

‘খ’ শাখায় নবীনদের মধ্যে এবার উপন্যাসে বাংলা প্রকাশ থেকে প্রকাশিত ‘জাতিস্মর’ গ্রন্থের জন্য গাজী তানজিয়া, কবিতায় আমার প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘সাময়িক শব্দাবলী’ গ্রন্থের জন্য তনুজা ভট্টাচার্য, ছোটগল্পে শস্যপর্ব থেকে প্রকাশিত ‘ম্যাগনাম ওপাস ও কয়েকটি গল্প’ গ্রন্থের জন্য মাহবুব আজাদ এবং শিশুসাহিত্যে অনন্যা থেকে প্রকাশিত ‘ভূতের পায়ে বুট’ গ্রন্থের জন্য রিফাত কামাল সাইফ পুরস্কার জিতেছেন।

নবীন-প্রবীণ লেখকদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন পুরস্কার প্রধান কমিটির পক্ষে বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আনন্দ আলোর সম্পাদক রেজানুর রহমান এবং সিটিব্যাংক এনএ’র পক্ষে নির্বাহী প্রধান মামুন রশীদ। পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে ক্রেস্ট এবং নগদ অর্থ তুলে দেয়া হয়। ‘ক’ শাখায় পুরস্কারের মূল্যমান প্রতিটি ২৫ হাজার এবং ‘খ’ শাখার মূল্যমান প্রতিটি ১০ হাজার টাকা। পুরস্কার পেয়ে অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে রাবেয়া খাতুন বলেন, অনেকদিন পর আবারো পুরস্কার পেয়ে দারুণ ভালো লাগছে। মফিদুল হক বলেন, আমার প্রবন্ধ যে অনেকেই পাঠ করেন তা পুরস্কার পেয়ে বুঝেছি। কামাল চৌধুরী বলেন, কাব্যসাধনায় আমার দায়িত্ববোধ আরো বেড়ে গেল। কাইজার চৌধুরী বলেন, এখন থেকে আরো সিরিয়াসলি লেখালেখি করবো। নাসরীন জাহান বলেন, গল্প লেখায় প্রথম পুরস্কার পেলাম। এ পুরস্কারের অনুভূতি অন্যরকম।

নবীন লেখকরা পুরস্কার পেয়ে যেন আনন্দের জোয়ারে ভেসে গেলেন।
স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব
মুক্ত চলচ্চিত্র, মুক্ত প্রকাশ স্লোগানে জাতীয় জাদুঘর ও কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরিতে চলছে নয়-দিনব্যাপী স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব। বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের আয়োজনে উৎসবে প্রদর্শিত হচ্ছে পৃথিবীর ৩০টি দেশের চলচ্চিত্র।

উৎসবের আজকের আয়োজনে চলচ্চিত্র প্রদর্শন ছাড়াও থাকছে বিশেষ অধিবেশন। আজ সকাল ১১টায় জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল সেমিনার হলে ‘ইনসার্চ অফ এ পাথ’ শিরোনামে বক্তব্য রাখবেন আন্তর্জাতিক প্রামাণ্যচিত্র প্রতিযোগিতা বিভাগে জুরি চেয়ারম্যান হিসেবে শ্রীলংকা থেকে উৎসবে যোগ দেয়া বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা ড. ধর্মসেনা পাতিরাজা।

পথনাটক উৎসব
স্বাধীনতার মাস উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে চলছে সাতদিনব্যাপী পথনাটক উৎসব। গতকাল উৎসবের ষষ্ঠ দিনে সাতটি পথনাটক মঞ্চস্থ হয়।

[ad#co-1]