মুন্সীগঞ্জে তিনদিনব্যাপী প্রেমপত্র প্রদর্শনী

‘তোর প্রতিটি শব্দের কাছে আমি পরাজিত প্রতিটি কবিতা আমায় করে দিশেহারা।’ ‘আমি আর পারছি না। এ জীবন থেকে মুক্তি চাই।’ ‘তুমি লিখেছো, We must love one another or die.. এ কথার মূল্য দিও…’ এরকম অনেক কথার মধ্যে আনন্দ, বেদনা, দুঃখ-কষ্ট, ভালোবাসা, পারিবারিক-সামাজিক টানাপড়েনসহ নানা বিষয় উঠে এসেছে প্রদর্শিত চিঠিগুলোয়। দুদিনব্যাপী প্রেমপত্র প্রদর্শনীর কথা থাকলেও দর্শকদের অনুরোধে আরেকদিন সময় বাড়াতে হয়েছে। যেন শেষ করেও শেষ করা গেল না। কেউ কেউ বলেছে এ প্রদর্শনী এক সপ্তাহ থাকলে ক্ষতি কি? ভ্যালেনটাইনস ডে উপলক্ষে জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম ও সাপ্তাহিক মুন্সীগঞ্জ সংবাদের উদ্যোগে মুন্সীগঞ্জ চারুকলা সংস্থার আর্ট গ্যালারিতে এ প্রদর্শনী ১৪-১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলে। এ প্রদর্শনীতে ৫৬টি চিঠি ও কার্ড ছিল। ব্যতিক্রমধর্মী এ প্রদর্শনী দেখতে প্রচুর তরুণ-তরুণীর সমাগম ঘটে। এছাড়াও চারুকলা সংস্থায় বসে কবিতা পাঠের আসর ও মুক্ত আলোচনা। বিষয় ছিল ভালোবাসা ও মাতৃভাষা।

প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন মুন্সীগঞ্জ চারুকলা সংস্থার সভাপতি বীণা ব্যানার্জী। প্রেমপত্রগুলো প্রদর্শনীতে তুলে ধরতে এবং আকর্ষণীয় করে তুলতে যারা শিল্পকর্ম করেছেন তারা হলেন ফ্রেন্ডস ফোরামের আহ্বায়ক চিত্রকর আব্দুস সাত্তার মানিক, বাফার চিত্র প্রশিক্ষক পলাশ সরকার, য়ায়যায়দিনের মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি শহীদ-ই-হাসান তুহিন, চারুকলার প্রশিক্ষক আহসান হাবিব চঞ্চল। আলোচনা ও কবিতা পাঠে যারা অংশ নিয়েছেন তারা হলেন বীণা ব্যানার্জী, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আরিফ-উল-ইসলাম, শহীদ-ই-হাসান তুহিন, মুন্সীগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্য-সচিব কাজী দীপু, সাংবাদিক গোলজার হোসেন, মুন্সীগঞ্জ থিয়েটার সার্কেলের সভাপতি আনমনা আনোয়ার, সাপ্তাহিক মুন্সীগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাসুদ আহমেদ অর্ণব, মুন্সীগঞ্জ সাহিত্যজনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন আকাশ, চিত্র শিল্পী রাহুল, টিআইবির সহকারী প্রোগ্রাম অফিসার শবনম মোস্তারী, ফ্রেন্ডস ফোরামের সদস্য সচিব শেখ মো. রতন, নাট্যকার ও সাংবাদিক সুজন হায়দার জনি, সংস্কৃতি কর্মী মো. ফরহাদ হোসেন খোকন, মাসুদ রানা, মো. সোহেল, ফ্রেন্ডস ফোরামের সদস্য জাহিদ হাসান, সাংবাদিক আরাফাত উজ্জামান বাবু প্রমুখ

শেখ মো. রতন, সদস্য সচিব