তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টাসহ ২জন দ্বৈত নাগরিক

৪ জন অযোগ্য:ব্যারিস্টার রফিক
মিলটন আনোয়ার:
ওয়ান ইলেভেনের পরবর্তীতে যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করা হয়েছিল তাদের মধ্যে সাতজন উপদেষ্টা দায়িত্ব পালনে অযোগ্য ছিলেন বলে জানিয়েছেন বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক উল হক। এরমধ্যে প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদসহ অন্তত দুইজন উপদেষ্টা ছিলেন দ্বৈত নাগরিক যা উপদেষ্টা হওয়ার ক্ষেত্রে অন্যতম অযোগ্যতা। এছাড়া বাকিরা সংশোধিত গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ অনুযায়ী উপদেষ্টা হওয়ার অযোগ্য। গতকাল আমাদের সময়ের সঙ্গে আলাপকালে ব্যারিস্টার রফিক এই কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ ও পররাষ্ট্রউপদেষ্টা ইফতেখার আহমদ চৌধুরী দু’জনই বিদেশি পাসপোর্টধারী ছিলেন এটা মোটামুটি নিশ্চিত। আর বাকি পাঁচজন নিজেদের তৈরি গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ অনুযায়ী উপদেষ্টা হওয়ার অযোগ্য।

ব্যারিস্টার রফিকের মত অনুযায়ী উপদেষ্টা হওয়ার অযোগ্য হিসেবে আরো যারা ছিলেন, তারা হলেন অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন উপদেষ্টা মো. আনোয়ারুল ইকবাল, কৃষি উপদেষ্টা ড. চৌধুরী সাজ্জাদুল করিম, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী এবং বাণিজ্য ও শিক্ষা উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান।

তিনি বলেন, উপদেষ্টা হওয়ার যোগ্যতা হিসেবে সংবিধানের ৫৮ (গ)(৭) (ক) অনুচ্ছেদে আছে, তাকে সংসদ-সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হবার যোগ্য হতে হবে। সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদে সংসদ সদস্য হবার অযোগ্যতা হিসেবে বলা হয়েছে যে, যদি তিনি কোনো আইনের দ্বারা বা অধীন অনুরূপ নির্বাচনের জন্য অযোগ্য হন।

প্রথমত: দ্বৈত নাগরিকরা নির্বাচন করার যোগ্য নন। ফলে প্রথম দুইজন উপদেষ্টা হতে পারেন না।

২০০৮ সালের ১৯ আগস্ট গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশে যে সংশোধনী আনা হয়েছে সেখানে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি প্রজাতন্ত্রের বা কোনো সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের বা প্রতিরক্ষা কর্মবিভাগের কোনো চাকরি থেকে পদত্যাগ করার বা অবসর গ্রহণের পর তিন বছর পার না হলে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচনের যোগ্য হবেন না। আর এ ধরনের চাকরি থেকে বরখাস্ত, অপসারিত বা বাধ্যতামূলক অবসর পাওয়ার পর পাঁচ বছর পার না হলে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করা যাবে না। এসব বিভাগের চাকরিতে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেলেও সেই চুক্তি মেয়াদ পার হওয়ার বা চুক্তি বাতিলের পর তিন বছর পার হলে তবেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করা যাবে। কোনো বেসরকারি সংস্থার প্রধান নির্বাহীও চাকরি ছাড়ার পর তিন বছর পার না হলে সংসদ সদস্য নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না। সেই বিবেচনায় ওই উপদেষ্টা পরিষদে প্রধান উপদেষ্টাসহ সাতজন ছিলেন যারা উল্লিখিত পদ থেকে অবসর নিয়েছেন তিন বছর হয়নি। যার ফলে তারা সংসদ সদস্য হবার যোগ্য হবেন না। যেহেতু সংসদ সদস্য হবার যোগ্য হবেন না সেহেতু উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না।

এদিকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান ওয়ান ইলেভেনের উপদেষ্টা পরিষদের চারজনকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক উল্লেখ করে বিষয়টি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।

[ad#co-1]