গজারিয়ায় আনোয়ার স্পিনিং মিলের গুদামের আগুন নেভেনি, তদন্ত কমিটি

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দি এলাকার আনোয়ার জুট অ্যান্ড স্পিনিং মিলের গুদামের আগুন গতকাল বৃহস্পতিবারও পুরোপুরি নেভানো যায়নি। গত বুধবার বেলা সোয়া একটার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ডেমরা ফায়ার সার্ভিস কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা মফিদুল ইসলাম জানান, মূলত ধোঁয়ার কারণে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হলেও পুরোপুরি নেভাতে তিন থেকে চার দিন লাগতে পারে। ফায়ার সার্ভিসের ১০টি গাড়ি ও কারখানার নিজস্ব পাম্পের মাধ্যমে আগুন নেভানোর চেষ্টা চলছে।

মিলের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন জানান, গুদামের ভেতরে কোনো বৈদ্যুতিক সংযোগ ছিল না। গুদামের বাইরে দিয়ে যে বিদ্যুত্ সঞ্চালন লাইন রয়েছে, তা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়ে থাকতে পারে। এ ব্যাপারে দু-এক দিনের মধ্যে নিজস্ব তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।

মুন্সিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোশারফ হোসেন (ডিসি) জানান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হাসানুল ইসলামকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে দুই দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

=================================================

এখনো জ্বলছে গজারিয়ার আনোয়ার জুট মিল ।। ২৫ শ্রমিক অগ্নিদ্বগ্ধ

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ থেকে:

এখনো জ্বলছে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ভবানীপুর শিকিরগাওঁয়ের আনোয়ার জুট স্পিনিং মিলের আগুন। গত বুধবার দুপুর থেকে গতকাল দিনভর দমকল বাহিনী ও মিলের শ্রমিকরা আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আনলেও এখনো গুদামের বিভিন্ন স্থানে আগুন জ্বলছে। আগুন নেভাতে গিয়ে বাবুল, শাহীন, নাসির, কামাল, ফরিদ, কবির, জাহাঙ্গীর, আক্তার মিয়া, হোসেন, সাত্তারসহ মোট ২৫ শ্রমিক অগ্নিদ্বগ্ধ হয়েছে। আহতদের গজারিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। মিলের গুদামে থাকা বেশীর ভাগ পাট পুড়ে গেছে। ঘটনাস্থলে র‌্যাব ও পুলিশ টহল অব্যাহত আছে।

স্থানীয় সূত্র ও পুলিশ জানায়, বুধবার আগুন লাগার খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ, বন্দর, হাজীগঞ্জ ও ঢাকার ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের ১০টি পানিবাহী গাড়ী ও শতাধিক দমকল বাহিনী আগুন নেভাতে আসে। গতকাল থেকে ঢাকা হেডকোয়ার্টার্স ও কুমিল্লা ফায়ার সাভির্সের দমকল কর্মীরাও যোগ দেয়।

মালিক আনোয়ার হোসেনের দাবি, আগুনে পাট এবং অবকাঠামোগত ২০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

[ad#co-1]