মাছেই লোভ ওসি সাহেবের

কাজী দীপু : মুন্সীগঞ্জ থেকে: নারী নির্যাতন মামলার আসামিকে গ্রেফতার না করে তার কাছ থেকে ৫ হাজার টাকার বিভিন্ন প্রজাতির মাছ নিয়ে ফিরে গেছেন মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলাম। স্থানীয় গ্রামবাসীরা এ অভিযোগ করেছেন। গতকাল বিকেলে মাছ নিয়ে থানায় ফেরার সময় জিপ নষ্ট হয়ে গেলে তিনি অপর এক পুলিশ সদস্যকে গাড়ি থেকে মাছ নিয়ে তার বাসায় পৌঁছে দিতে বলেন। তবে সদর থানার ওসি শহীদুল ইসলাম এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, আসামি ধরতে নয়, মাছ কিনতে চরাঞ্চলের বাংলাবাজারে গিয়েছিলাম। এ সময় সদর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুল কবির সঙ্গে ছিলেন।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে সদর থানার ওসি আলাপকালে উক্ত অভিযোগ যাচাইয়ের জন্য তিনি তার মোবাইল ফোনে সদর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুল কবির মাস্টারের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ করে দেন। ওই আওয়ামী লীগ নেতা ওসি’র সঙ্গে মাছ কিনতে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন। এসময় এ প্রতিবেদক ‘কত টাকা দিয়ে মাছ কিনলেন’ প্রশ্ন করলে আওয়ামী লীগ নেতা মোবাইল ফোনের সংযোগ কেটে দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় গ্রামবাসী ও ব্যবসায়ীরা জানান, গত এক সপ্তাহ আগে মহেশপুর গ্রামের রহিমা বেগম আওয়ামী লীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসী ময়না, রফিকসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন। আসামিদের বিরুদ্ধে ওই মামলার ওয়ারেন্ট জারি করা কাগজ সদর থানায় পাঠানো হয়। কিন্তু আসামিরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপর্কম করলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। উল্টো গতকাল থানার ওসি বাংলাবাজারে গিয়ে আসামি ময়নার কাছ থেকে চিংড়ি, সিং মাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫ হাজার টাকার মাছ নিয়ে চলে আসেন। ওসি ঘটনাস্থলে থাকাকালে স্থানীয়রা সাক্ষী দিতে চাইলে তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারও করেন বলে অভিযোগ করেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। এ অবস্থায় পুলিশের ভাবমূর্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

[ad#co-1]