ঢাকা-না’গঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কে তীব্র যানজট : ৰতিগ্রসত্দ ব্যবসায়ীরা

ট্রাফিক পুলিশে জনবল সঙ্কট ও অপ্রশসত্দ সরম্ন রাসত্দার কারণে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ সড়কে যানজট বেড়েই চলেছে। নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সীগঞ্জের শতাধিক শিল্প কারখানার মালামাল এবং ব্যবসায়ীদের পণ্য সঠিক সময়ে গনত্দব্যে পেঁৗছাতে না পেরে শিল্প মালিক ও সাধারণ ব্যবসায়ীরা আর্থিক ৰতির সম্মুখীন হচ্ছেন। গুরম্নত্বপূর্ণ এ রম্নটে ৪ জন সার্জেন্ট, ২০ জন কনস্টেবল থাকার কথা থাকলেও মাত্র একজন ট্রাফিক কনস্টেবল যানজট নিরসনের দায়িত্ব পালন করছেন।

মন্সীগঞ্জ জেলা থেকে প্রতিদিন আলুসহ প্রায় সব ধরনের সবজি নিয়ে ২০০-৩০০ শ’ ট্রাক এ রম্নটে চলাচল করে। যানজটের কবলে সঠিক সময়ে কাঁচামাল বোঝাই শত শত ট্রাক পড়ে পেঁৗছতে পারছে না। ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জের সড়কে মাত্র ১ জন কনস্টেবল দিয়ে যানজট নিয়ন্ত্রণের কাজ চালানো হচ্ছে। অথচ থাকায় কথা ৪ জন সার্জেন্ট ২০ জন কনস্টেবল এবং একটি রেকার গাড়ি। নারায়ণগঞ্জ থেকে পাগলা মুন্সীখোলা এবং মুক্তারপুর থেকে পাগলা মুন্সীখোলা পর্যনত্দ ফতুলস্না থানার পঞ্চবটি এলাকার তিন রাসত্দার মোড়ে মাত্র ১ জন ট্রাফিক পুলিশ যানজট নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব পালন করতে পারছে না। ফলে এ যানজট নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ছে। এ সড়কে যানজটের সমস্যা দীর্ঘ দিনের।

সরেজমিনে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া থেকে পাগলা মুন্সীখোলা পর্যনত্দ রম্নটের বিভিন্ন স্থানে সড়কের ওপর ট্রাকসহ অন্যান্য যানবাহন এলোপাতাড়ি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

সড়ক দখল করে ফতুলস্না থানা সংলগ্ন সড়কের ওপর সবজির দোকান বসানো হয়। বিশেষ করে পাগলা মুন্সীখোলা এলাকায় ইট, বালু, সিমেন্ট ও রড লোড-আনলোড করার সময় প্রচ- যানজট সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে মুক্তারপুর ব্রিজ থেকে পঞ্চবটি হয়ে পাগলা মুন্সীখোলা পর্যনত্দ সড়কের দুই পাশে সহস্রাধিক শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালামাল রাসত্দার উপর রেখে লোড-আনলোড করা হচ্ছে। এতেও প্রচ-ভাবে যানজট সৃষ্টি হয়। দুই দশক আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্মাণ করা সড়ক সরম্ন দু’টি আজও একমুখী অবস্থায় রয়েছে। সড়কদুটি প্রসশসত্দ করে মাঝে সড়ক দ্বীপ করে কয়েক দফা সংস্কার কাজের পরিকল্পনা নিয়েও বাসত্দবায়ন করা হয়নি। এ ব্যাপারে জেলা ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর আনিসুজ্জামানের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, জনবল কম থাকায় এ সড়কে যানজট নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

জেলা পুলিশ সুপার বিশ্বাস আফজাল হোসেন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জের সড়কে ১ জন কনস্টেবল দিয়ে যানজট নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব পালনের কথা স্বীকার করে জানান, নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের জনবল কম থাকায় যানজট নিয়ন্ত্রণ করতে সমস্যা হচ্ছে ট্রাফিক পুলিশে জনবল বাড়াতে আবেদন করা হয়েছে।

[ad#co-1]