ফখরুদ্দীন সরকারের কার্যক্রম তদন্তে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি হচ্ছে

ফখরুদ্দীনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ের সকল অবৈধ কার্যক্রম তদন্তে উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন করার বিষয়ে সরকারের মধ্যে আলোচনা চলছে। মাইনাস টু ফর্মুলা, শীর্ষনেত্রীদের খাবারে বিষ, নতুন রাজনৈতিক দল গঠন ও অর্থ সরবরাহ, রাজনৈতিক নেতাদের ওপর নির্যাতন, শিল্পপতিদের কাছ থেকে অর্থ আদায় এবং অতি উৎসাহী গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করার প্রক্রিয়া চলছে। আগামীকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এসব বিষয়ে আলোচনা হতে পারে বলে সরকারের একজন প্রভাবশালী মন্ত্রী জানিয়েছেন। তিনি জানান, বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ের উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের অভিযোগ খতিয়ে দেখার কাজ চলছে। ইতোমধ্যে কয়েকজন উপদেষ্টার দুর্নীতি তদন্তের বিষয়ে সংসদীয় উপকমিটি গঠন করা হয়েছে। সরকার চাচ্ছে বিগত সরকারের সময়ে সংঘটিত ঘটনাসমূহের সঠিক তথ্য প্রকাশ করতে। তিনি বলেন, ওই সময়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অনেক নেতাদের ওপর নির্যাতন হয়েছে- যা আগে কখনও ঘটেনি। কেউ যদি এ বিষয়ে কমিশন গঠনের দাবি করে তাহলে সরকার হয়তো মতামত নিয়ে তা করতে পারে। সরকারের অপর একজন নীতিনির্ধারক বলেন, ফখরুদ্দীনের সময়ে সরকারের ছত্রছায়ায় কয়েকটি রাজনৈতিক দলের জš§ হয়েছিল। তাদের পেছনে তারা কত টাকা ব্যয় করেছে, কোন কোন উৎস থেকে তা সরবরাহ করা হয়েছে তা চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া এর সঙ্গে কোন কোন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা জড়িত ছিলেন তাও চিহ্নিত হচ্ছে এবং শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, শিল্পপতিদের কাছ থেকে ওই সময়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিপুল অর্থ আদায় করা হয়েছে। যদিও সরকারের ভাষ্যে তখন ১৩০০ কোটি টাকা আদায় করা হয়েছে এবং তা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছিল।

এদিকে বুধবার একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সাংসদ ড. মহীউদ্দিন খান আলমগীরও বলেছেন, ফখরুদ্দীন সরকারের আমলে নতুন রাজনৈতক দল গঠনে কারা জড়িত ছিলেন এবং তাদের পেছনে কী পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়েছে- সে বিষয়ে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।