মুন্সীগঞ্জ বিএনপি’র আহ্বায়ক কমিটি বিভক্ত : নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা

মুন্সীগঞ্জের কমিটি গঠন নিয়ে বিএনপি’র পূর্ণাঙ্গ আহ্বায়ক কমিটি এখন দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে উত্তেজনা। আহ্বায়ক কমিটির একটি অংশ আহ্বায়কের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরে দলের চেয়ারপারসনের কাছে স্খায়ী কমিটির সদস্য এম শামছুল ইসলামের পরামর্শে কমিটি গঠনের দাবি তুলেছে।
সূত্র মতে, কমিটির সব সদস্যকে না জানিয়ে কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্য করে আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা তার সমর্থিত সাবেক জেলা বিএনপি’র সভাপতি বর্তমানে যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল হাইকে নিয়ে তাদের পছন্দের লোককে এই কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করায় আহ্বায়ক কমিটি দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা গত ২৫ জুন এক দিকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হাই কমান্ডের কাছে দাখিল করেন; অন্য দিকে একই কমিটির ছয় যুগ্ম আহ্বায়ক দাখিলকৃত কমিটি তাদের মতামত অগ্রাহ্য করে আহ্বায়ক তার অনুসারীদের নিয়ে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে গঠন করা হয় বলে অভিযোগ তুলে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কাছে লিখিতভাবে জানিয়েছেন। এরপরই আহ্বায়ক কমিটি দু’ভাগে বিভক্ত হওয়ার বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে আসে।
নেতাকর্মীরা জানান, বিএনপি’র স্খায়ী কমিটির সদস্য এম শামছুল ইসলামের অনুসারীরা একটি পক্ষ এবং অপর পক্ষে রয়েছেন সাবেক স্বাস্খ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই এবং তাদের অনুসারীরা। তাদের আধিপত্যের দ্বন্দ্বের জের ধরেই আহ্বায়ক কমিটি এখন বিভক্ত হয়ে পড়েছে।
নেতাকর্মীরা আরো জানান, গঠিত নতুন কমিটিতে আহ্বায়ক মিজানুর রহমান সিনহা ও যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল হাইয়ের অবস্খান শক্ত করতে নজরুল ইসলাম বাচ্চু, শাহজাহান খান ও মমিন আলীকে যুগ্ম আহ্বায়ক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করায় দ্বন্দ্ব দেখা দেয়।
মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক সাবেক স্বাস্খ্য প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহা এই অভিযোগের বিষয়টি অবগত নন দাবি করে বলেন, দলের হাই কমান্ড যে দায়িত্ব দিয়েছে তা পালনের লক্ষ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করে ২৫ জুন কেন্দ্রে দাখিল করা হয়েছে। এখন চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও হাই কমান্ড যে দিকনির্দেশনা দেবেন সে অনুযায়ী কাজ করা হবে।